Breaking News
Home / INSPIRATION / বাবা মারা যাওয়ার আগে পুত্রকে এই সত্যিটা বলে গেছিলেন, গল্পটি জানলে আপনিও আপনার চোখের জল ধরে রাখতে পারবেন না

বাবা মারা যাওয়ার আগে পুত্রকে এই সত্যিটা বলে গেছিলেন, গল্পটি জানলে আপনিও আপনার চোখের জল ধরে রাখতে পারবেন না

একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার একটি খুব বড় মাল্টিন্যাশনাল সংস্থায় কাজ করতেন। তার পুরো পৃথিবী ছিল তার বাবা-মা এবং স্ত্রী এবং তার দুই সন্তানকে ঘিরে। তার বাবা তাকে সর্বদা একটি ভালো নৈতিক জ্ঞান দিয়েছিলেন এবং তার শিক্ষক ছিলেন। দরিদ্র বাচ্চাদের সাহায্য করার জন্য সে তার ছেলেকে সর্বদা অনুপ্রাণিত যি। ছেলেও তার বাবা-মায়ের কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করার চেষ্টা করেছেন।

বড় হয়ে ছেলে এমন কিছু করলো যে ব্যাপারটি জানার পরে তার বাবা-মায়ের ছেলের প্রতি ভালোবাসা শ্রদ্ধায় পরিণত হয়েছিল। এই গল্পটি একটি সরকারি শিক্ষকের বাড়ির দুই দশক আগে শুরু হয়েছিল। একজন শিক্ষক পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের একটি জেলার বাসিন্দা তাদের কোনো সন্তান ছিল না। তারা তাদের একাকীত্ব কাটিয়ে ওঠার জন্য একটি শিশুকে দত্তক নেন।

দুজনেই আগ্রার সরকারি হোম থেকে একটি শিশুকে দত্তক নিয়েছিল। তিনি সেই শিশুটিকে তার বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং প্রচুর ভালোবাসা দিয়ে বড় করতে থাকেন। কিন্তু একবছর বাদেই তার মা মারা গেলেন। সন্তানের যত্ন নেওয়ার জন্য তার বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করেন। দ্বিতীয় মাও তাকে পরম যত্নে বড় করতে থাকেন। তাকে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে ভর্তি করা হয়।

সে কখনও তার বাবাকে হতাশ করেনি। সে সর্বদা পড়াশোনায় ভালো নাম্বার পেয়েছে এবং সে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করে। আজ সে একজন সফল সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, কিন্তু যখন সে তার আসল পরিচয় জানতে পারল তখন তার চোখে আনন্দে জল বের হতে লাগলো।

তিনি একইসঙ্গে অভিযোগ জানালেন যে তাকে কেন সত্য বলা হলো তার কাছে তার বাবা-মা এবং ঈশ্বর এক এবং অভিন্ন। এই সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার তার স্ত্রী এবং দুই সন্তানের সাথে সুখী জীবনযাপন করছিল কিন্তু তার বাবা তাকে যা বলেছিলেন তার জীবনটাই বদলে দেয়। তিনি আগ্রা সরকারি হোমের শিশুদের সংখ্যাটি জানতে পারেন। এর সাথে তিনি তৎকালীন সুপারেন্ডেন্ট এর সাথে যোগাযোগ করেছিলেন।

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারটি সরকারি হোমের শিশুদের জন্য কিছু করতে চেয়েছিলেন যাতে তারাও একটি পরিচয় পায়। এই ক্ষেত্রে সরকারি হোমের তৎকালীন সুপার উর্মিলা গুপ্ত যিনি এখন কানপুরের সরকারি কিশোরী হোমের সুপারেনন্ডেন্ট হয়েছেন। সে বলেছিলেন যে দুই দশক আগে শিক্ষক স্বামী-স্ত্রী কর্তৃক একটি শিশুকে দত্তক নেওয়া হয়েছিল। যিনি এখন পড়া লেখার মাধ্যমে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হয়েছেন। তিনি এখন এই কিন্ডারগার্টেনের বাচ্চাদের জন্য কিছু করতে চান।

Check Also

স’কল মায়ে’র আদর্শ ইনি, দোকান চলে যাওয়ার পর, গয়না বেচে মেয়েকে পড়িয়েছেন, এখন ব্যাগে মাশরুম চাষ করে মাসে ২৫-৩০ হাজার টাকা আয় করেন এই মহিলা

কৃষিকাজ এমন একটি শিল্প যা আপনি যেকোনো সময় এবং খুব স্বল্প ব্যায়ে শুরু করতে পারেন ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *