Breaking News
Home / VIRAL / কো’ভি’ড টি’কা নেয়ার পর’ই এই তি’ন ম্যাগ’নেট ম্যান এর গায়ে সেঁটে যাচ্ছে হাতা, খুন্তি, চামচ।

কো’ভি’ড টি’কা নেয়ার পর’ই এই তি’ন ম্যাগ’নেট ম্যান এর গায়ে সেঁটে যাচ্ছে হাতা, খুন্তি, চামচ।

টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় গোটা দেহ রাতারাতি চুম্বকে পরিণত হয়ে গেল, এও কি সম্ভব! সাধারণত করোনা টিকা নেওয়ার পর জ্বর,গায়ে-হাত-পায়ে ব্যথা, মাথা যন্ত্রণা এসব হতে পারে, তাবলে সারা শরীর চুম্বকের কিভাবে হতে পারে? কিন্তু টিকা নেওয়ার পরই সারা শরীর চুম্বক হয়ে গিয়েছে এমনই দাবি করেছে টিকা প্রাপক। একজন এমন দাবি করেননি, এমন দাবি করেছেন তিনজন।

আর এই তিনজন আলাদা আলাদা শহরের বাসিন্দা। ইতিমধ্যেই “ম্যাগনেট ম্যান” নামে এই তিনজন চর্চায় এসেছেন। শিলিগুড়ির নেপাল চক্রবর্তী গত ৭ই মে টিকা নেন আর তাঁর কথা মতো এরপর থেকেই তাঁর শরীরে এই পরিবর্তন। পঞ্চাশোর্ধ প্রবীণের গায়ে হাতা-খুন্তি, টাকার কয়েন,চামচ,চাবি যাই দেওয়া হচ্ছে তাই আটকে যাচ্ছে বলে তাঁর ও তাঁর পরিবারের দাবি।

এই নিয়ে শিলিগুড়ির চিকিৎসক মহল এর থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। শুধু জানা গেছে নেপালবাবু উচ্চ রক্ত চাপের রুগি, তাই বিশ্রাম নেওয়া তাঁর একান্তই প্রয়োজন। আবার শোনা যায় বসিরহাটের হিঙ্গলগঞ্জের বাসিন্দা ৭৪ বছরের শঙ্কর প্রামাণিক টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেন ৮ই এপ্রিল। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর তেমন কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া না দেখা দিলেও দ্বিতীয় ডোজের পর থেকেই নাকি তাঁর দেহ চুম্বকের হয়ে গেছে।

রবিবার মুদিখানা দোকানে খুচরো কয়েন দেওয়ার সময় ঘটে বিপত্তি। দোকানি দেখেন খুচরো কয়েন শঙ্করবাবুর দেহে আটকে যাচ্ছে, ঠিক যেন চুম্বক। এই নিয়ে শঙ্করবাবু জানান, “ভ্যাকসিন নেওয়ার পর এমন হচ্ছে কিনা জানিনা। তবে আমার শারীরিক কোনো সমস্যা নেই।” এরপর এমনই ঘটনার পুনরাবৃত্তির কথা শোনা যায় আসানসোলেও। এবার কোনো প্রবীণ নাগরিকের সাথে এমন ঘটেনি, ঘটেছে ২৭ বছরের নাগরিক অঙ্কুশ সাউ -এর সাথে।

তিনি গত ৮ই জুন নিজের এলাকার স্বাস্থ্যকেন্দ্রে করোনার টিকা নেন আর তারপর থেকেই তাঁর দেহে কয়েন,গাড়ির চাবি জাতীয় লৌহ-বস্তু আটকে যেতে থাকে। অঙ্কুশের দাবি তাঁর সাথে এমন ঘটনা ইতিপূর্বে ঘটেনি। এর আগে নাসিকের এক বাসিন্দা অরবিন্দ সোনারের ক্ষেত্রেও একই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ঘটে। সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হয়। চিকিৎসকদের মতে এ ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হওয়া সম্ভব নয়।

তাঁরা বারবার বলেন ভ্যাকসিন নিলে যে দেহে চুম্বকীয় প্রভাব পড়বে এই ধারণার কোনো ভিত্তি নেই। একই কথা সিডিসি থেকেও জানা যায়। প্রশ্ন উঠছে টিকা নিয়ে। ড. শ্যামাশীষ বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রসঙ্গে বলেন, “এই ধরনের খবর পেয়েছি। তবে এখনও পর্যন্ত এর কোনো বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা পাইনি।” মাইক্রোবায়োলজিস্ট ড. সুমন পোদ্দার বলেন, “আমাদের দেশে এমনও হয়েছে গণেশ বাটি থেকে দুধ খাচ্ছে বলে মানুষ বিশ্বাস করছে।

ফলে এই ধরনের ঘটনা হওয়া ও প্রচার পাওয়া অস্বাভাবিক কিছু না।” তাঁর মতে দেহে যদি সত্যিই ম্যাগনেট পাওয়ার আসে তবে বুঝতে হবে দেহে ইলেকট্রো ম্যাগনেট ফিল্ড তৈরি হয়েছে। যদি সত্যিই তাই হয় তবে কেবল হাতা-খুন্তি বা চাবি কেন সমস্ত লৌহ-বস্তুই দেহে সেঁটে যাওয়ার কথা। রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় সেক্ষেত্রে লাইটের পোলের সাথেও তাঁদের আটকে যাওয়া উচিত বলে জানান তিনি।

কিন্তু এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ড. কুণাল সরকার স্পষ্ট বলেন “পৃথিবীতে ৮০ কোটি মানুষ ভ্যাকসিন নিয়েছে। কারোর কিছু হল না শুধু চারজন লোকের এমন হল তা কি করে সম্ভব।” মানুষের মধ্যে ভ্রান্তি তৈরির উদ্দেশ্যেই এমন ঘটনার সৃষ্টি বলেই তিনি জানান। উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের প্রধান অধিকর্তা সন্দীপ সেনগুপ্ত জানিয়েছেন এই ধরনের ঘটনা ঘটা সম্ভব নয়। তবুও তাঁরা নেপালবাবুকে হাসপাতালের পর্যবেক্ষণে রেখেছেন।।

Check Also

কাজের টাকা না দেয়ায় মালিকের পৌনে ৬ কোটির বাড়ি গুঁড়িয়ে দিলেন মিস্ত্রি

বাড়ি তৈরির কাজ করিয়েও পুরো টাকা না দেওয়ায় শাস্তি পেলেন জে কুর্জি নামের এক বাড়িওয়ালা। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *