Breaking News
Home / VIRAL / নিজের জীবন বাজি রেখে বাঁচিয়েছিলেন অন্ধ মায়ের ছেলের জীবন, রেলকর্মীর মহৎকাজের সংবর্ধনা দেশজুড়ে

নিজের জীবন বাজি রেখে বাঁচিয়েছিলেন অন্ধ মায়ের ছেলের জীবন, রেলকর্মীর মহৎকাজের সংবর্ধনা দেশজুড়ে

কথায় আছে রাখে হরি মারে কে! এই বিষয়টি আরো একবার প্রমাণ হল সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওর মাধ্যমে। গত ১৭ এপ্রিল সন্ধে সাড়ে ৬টা নাগাদ মহারাষ্ট্রের ভানগানি স্টেশনের ২ নম্বর প্লাটফর্মে একটি ৬ বছরের শিশু মা এর হাত ধরে হাঁটতে হাঁটতে

একদম প্লাটফর্মে ধারের দিকে চলে আসে সে এবং কিছু বুঝে ওঠার আগেই বাচ্চাটি আচমকাই মা এর হাত থেকে বেরিয়ে গিয়ে নিজের শরীরের ভারসাম্য রাখতে না পেরে হঠাৎই বাচ্চাটি রেললাইনের মাঝে পড়ে যায়। অন্যদিকে শিশুটির মা সঙ্গীতা দৃষ্টিহীন হওয়ায় সে বুঝতে পারেনি বিষয়টি ঠিক কী ঘটেছে। কিন্তু সে এই টুকু বুঝতে পারছিল যে চারিদিকে অস্বাভাবিক কিছু ঘটেছে। কারণ ওই বাচ্চাটি রেললাইনে পড়ে যাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই ওই লাইন দিয়ে দুরন্ত গতিতে ট্রেন প্লাটফর্মে ঢুকে পড়ে।

ঠিক সেইসময়ে শিশুটির দৃষ্টিহীন মা কিছু বুঝে ওঠার আগেই রেলের “পয়েন্টস ম্যান” ট্রেন প্লাটফর্মে ঢোকার আগের মুহূর্তেই নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রেললাইন থেকে শিশুটিকে সরিয়ে বাঁচিয়ে নেন তিনি। এরপর ওই রেলকর্মী বা ‘পয়েন্টস ম্যান’-এর এই অসাধারণ সাহসীকতার ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই ‘পয়েন্টস ম্যান’ অর্থাৎ ময়ূর এই প্রসংগে বললেন যে, ”ওই শিশুর সঙ্গে যে মহিলা ছিলেন, তিনি দৃষ্টিহীন। তাই তিনি কিছু করতে পারতেন না। ওই শিশুকে দেখেই রেললাইন ধরে ছুটে যাই। প্রথমে একবার ভয়ও হয়। মনে হয়, শিশুকে বাঁচাতে গিয়ে আমি বিপদে পড়ে যাব। পরক্ষণেই মনে হয়, আমার ওকে বাঁচানো উচিত। ঘটনার পর ওই মহিলা খুবই আবেগপ্রবাণ হয়ে পড়েন। বার বার আমাকে ধন্যবাদ জানান। পরে ফোন করেছিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল ”।

রেলে কর্মরত ‘পয়েন্টস ম্যান’ ময়ূরের এইরূপ সাহসিকতা দেখে তার সঙ্গে কর্মরত বন্ধুরা তাকে নিয়ে খুবই গর্ববোধ করেছেন। তাই সেন্ট্রাল রেলওয়ে অফিসে ময়ূর ঢুকতেই তার সহকর্মীরা তার এই বীরত্বের জন্য হাততালি দিয়ে তাকে সম্মান জানিয়েছেন। তার এই কাজের জন্য তাঁকে সংবর্ধনাও দেওয়া হয়েছে। রেলকর্মীর ময়ূরের এই বীরত্বমূলক কাজের পরিচয় পেয়ে রেলমন্ত্রকও তার প্রতি গর্বিত।

তাই রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি তুলে ধরে এই প্রসঙ্গে নিজে টুইটারে টুইট করে লিখেছেন, “ময়ূর শেলকের কাজে আমরা খুবই গর্বিত। ভানগানি স্টেশনে নিজের জীবন বাজি রেখে শিশুকে বাঁচিয়ে ব্যতিক্রমী সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি।”

রেল মন্ত্রক পীযূষ গয়াল এই টুইট এর মাধ্যমে শেলকের বীরত্বকে সকলের সামনে তুলে ধরেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ায় ভিডিওটি দেখলেই বোঝা যাবে যে, রেলকর্মী বা রেলের ‘পয়েন্টস ম্যান’ ময়ূর শেলকে ওই ৬ বছরের শিশুটিকে ওই ভাবে পরে যেতে দেখে তিনি প্রচণ্ড গতিতে ছুটতে থাকেন কারণ তিনি লক্ষ্য করেন অন্যদিকে প্রচন্ড গতিবেগ ছুটে আসতে থাকে একটি ট্রেন।

প্রথমে রেললাইন ধরে ক্রমাগত দ্রুত ছুটতে থাকলেও ময়ূর মাঝে গতি কমিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু এরপর তিনি দেখেন শিশুটি প্লাটফর্মে ওঠার চেষ্টা করছে তা দেখে নিজের দৌড়ের গতি আরো বাড়িয়ে তিনি মুহূর্তের মধ্যে শিশুটিকে প্লাটফর্মে ট্রেন ঢোকার আগেই রেললাইন থেকে খুব দ্রুত তুলে নিয়ে, নিজেকে এই বিপদ থেকে সেফ করে নেন।

https://www.instagram.com/viralbhayani/?utm_source=ig_embed
সম্প্রতি ঘটে যাওয়া এই মারাত্নক ঘটনা দেখলে রীতিমত বুক কেঁপে উঠবে সকলেরই। রেলকর্মী ময়ূরের এই বীরত্বের পরিচয় পেয়ে মুগ্ধ গোটা নেট দুনিয়ার সকলে। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা নিমেষেই ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেট দুনিয়ায়। নেটিজেনরা সকলেই এই ভাইরাল ভিডিওটি দেখার পর এই কাজের জন্য ময়ূরের সাহসিকতাকে স্যালুট জানিয়ে তার প্রতি ভালোবাসা এবং বিশেষ সম্মান প্রদর্শন করেছেন।

Check Also

ধনী হতে শত শত মানুষ ছুটছেন এই গ্রামে (ভিডিও)

মাটি খুঁড়তে খুঁড়তে কাকতালীয়ভাবে অচেনা পাথর হাতে পড়েছিল এক পশুপালকের। পাথরটি কী তিনি জানতেন না। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *