Breaking News
Home / HEALTH / খাওয়ার পরই পেট ফাঁপে, বমিভাব? যে লক্ষণগুলি দেখে বুঝবেন আলসার কিনা…

খাওয়ার পরই পেট ফাঁপে, বমিভাব? যে লক্ষণগুলি দেখে বুঝবেন আলসার কিনা…

সাধারণ ভাবে বলতে গেলে আলসার কথার অর্থ ক্ষত। এই ক্ষত পরিপাকতন্ত্রের বিভিন্ন অংশে হয় এবং তা থেকে জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে। পরিপাকতন্ত্রে অ্যাসিড বেশি মাত্রায় উৎপন্ন হলে এই রোগ হয়। অন্য দিকে, অ্যাসিড মাত্রা ঠিক থাকলেও কয়েকটি ক্ষেত্রে এই রোগ হয়। তখন সেই আলসারকে সংক্রমণ ঘটিত আলসার বলে। এই রোগের বেশ কিছু লক্ষণ আছে। সেগুলি খুব সাধারণ।

অনেক সময় পেটে জ্বালা, ব্যথা এবং বমিভাব অনুভূত হলে লোকে খুব হালকাভাবে নেয়। তবে এটি হলে এমন নয় যে আপনার আলসার হতে পারে। হ্যাঁ, আলসার এমন এক ধরনের ক্ষত যা খাদ্যথলিতে অ্যাসিডের মাত্রাধিক্যের কারণে এই রোগ হলে সেখানে অ্যাসিড থেকে ক্ষত সৃষ্টি হয়। অন্য দিকে, সংক্রমণ থেকেও এই রোগ হয়। এইচ পাইলোরি নামে একটি ব্যাকটেরিয়া থেকে সংক্রমণ হয়। এই সংক্রমণের ফলে ক্ষুদ্রান্তের ভিতরে আলসার দেখা দিতে পারে। হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি নামক ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণের কারণেও এই রোগ হয়। এই সংক্রমণের লক্ষণগুলি শুরুতে খুব হালকা হয়। তবে হঠাৎ এগুলি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে, তাই তাদের লক্ষণগুলি বোঝা গুরুত্বপূর্ণ।

পেটের আলসার কী?
পেটের আলসার দুটি ধরণের রয়েছে – গ্যাস্ট্রিক আলসার এবং ডুডোনাল আলসার। গ্যাস্ট্রিক আলসারেত, পেটের উপর ঘা সৃষ্টি হয়, তবে ডুডিনাল আলসারে আপনার ছোট্ট অন্ত্রের উপরের অংশে ক্ষত তৈরি করে। ধারণত ডিওডেনাম আলসারে খালি পেটে ব্যথা হয়। গ্যাসট্রিক আলসারে সাধারণত দেখা যায় খাওয়ার পর বেশি হয়। ডিওডেনাম আলসারে কিছু খেলেই দেখা যায় ব্যথা কমে গেছে। ডিওডেনাম আলসারটা প্রচলিত। খালি পেটে ব্যথা হলে সে কিছু খেয়ে নেয়। দেখা যায়, তিন থেকে চার মাস তার উপসর্গ থাকল। আবার দেখা যায়, কিছু সময়ের জন্য সে ভালো থাকে।

অলসতা
পেটের আলসার সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ হ’ল অলসতা বা পেটের জ্বালা। আপনার পেট খালি থাকলে সাধারণত এই ব্যথা হয়। এটি কিছু সময়ের জন্য বা আরও বেশি সময় ধরে থাকতে পারে।

বদহজম বা অম্বল
আপনার যদি বদহজম হয় বা হৃদপিণ্ড জ্বলে থাকে তবে আপনার আলসার হতে পারে। যখন পেট অ্যাসিড খাদ্যনালীতে প্রবাহিত হয়, তখন হার্টের সংবেদন ঘটে হৃদয়ের কাছাকাছি বা তলপেটে।

বমি বমি ভাব
আপনি যদি সকালে অনেকক্ষণ ক্ষুধার্ত হয়ে থাকার পরে বমি বমি ভাব বা বমি বমি ভাব অনুভব করেন তবে এটি সম্ভবত আলসারের লক্ষণ।

কোনও কারণ ছাড়াই ওজন হ্রাস
যদি আপনি কোনও কারণ ছাড়াই ওজন হ্রাস করেন, তবে এটি আলসারের লক্ষণ হতে পারে। যত তাড়াতাড়ি এটি বোঝা যায় তত ভালa। কখনও কখনও পেটের আলসার তাদের দ্বারা প্রদাহজনিত কারণে হজম সিস্টেমে বাধা সৃষ্টি করে। এটি খাবার আপনার পেটে পৌঁছতে বাধা দেয়। যার কারণে ক্ষুধা ঘন ঘন হয়ে ওঠে, পাশাপাশি ওজনও কমতে শুরু করে।

আলসারের চিকিত্সা কী?
চিকিত্সা প্রায়ই আলসার কারণের উপর নির্ভর করে। উদাহরণস্বরূপ, হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরির কারণে যদি আলসার হয় তবে এই ব্যাকটিরিয়া ধ্বংস করতে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। এগুলি ছাড়াও ওষুধগুলি পেটের আলসার হ্রাস করতে সহায়তা করে। এ ক্ষেত্রে অ্যালকোহল এড়ানো এবং স্ট্রেস কাটানো উচিত। এ ছাড়া চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া একান্ত প্রয়োজন।

Check Also

পাই’লস সম’স্যার চির’স্থা’য়ী সমা’ধান লা’উ শা’ক!

পাইলস স’মস্যার চির’স্থা’য়ী – শীতের একটি সু’স্বাদু সব’জি হচ্ছে লা’উ শাক। এটি একটি ফ’লিক এসিড ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *