Breaking News
Home / EDUCATION / মাত্র তিন মাসে নিজে নিজে কীভাবে ইংলিশ স্পোকেন শিখবেন?

মাত্র তিন মাসে নিজে নিজে কীভাবে ইংলিশ স্পোকেন শিখবেন?

যদি ভুলক্রমেও আজ আপনি এই পোস্টটি পড়া শুরু করে থাকেন তবুও বলব আপনি সঠিক যায়গায় এসেছেন।

আজ আপনি জেনে যাবেন কীভাবে দৃঢ় ইচ্ছে থাকলে নিজে নিজে যে কোনো ভাষা শেখা যায়। এখানে চাপাবাজির কিছুই নেই, আপনি যদি আমার এই পোস্ট অনুযায়ী চেষ্টা করেন তবে ৩ মাসে ইংলিশে অনর্গল কথা বলতে পারবেন।

আমি আজ বলব মাত্র তিন মাসে যেভাবে আপনি ইংলিশে দক্ষ্য একজন স্পিকার হবেন।

কয়েকটি উপায়ে নিজে নিজেই ইংরেজিতে কথা বলা শিখতে পারেন। যদি আপনার কোনো ফ্রেন্ড না থাকে, বা আপনি নিজেকে এতটাই দুর্বল মনে করেন যে, কারো সামনে আপাতত কথা বলতে চাচ্ছেন না। নিজেকে একটু প্রস্তুত করে বন্ধুদের সাথে আড্ডা শুরু করবেন, অথবা নিজেকে ফ্লুয়েন্ট স্পিকার বানাতে চান, তবে আপনার জন্য এই পোস্ট।

১,Speak loudly বা জোরে জোরে কথা বলুন।

Every single word you should deliver loudly.
আপনি যে ওয়ার্ডটা উচ্চারণ করবেন সেটা জোরে জোরে বলতে চেষ্টা করবেন। যতক্ষণ না আপনি ইচ্ছে মত হৈ হুল্লুড় করে কোনো ভাষায় কথা বলবেন, ততক্ষণ আপনি হীনমন্যতায় ভোগবেন। কারো সামনে আপনার মুখ থেকে কথা বের হবেনা। বিশেষ করে অপরিচিতদের সাথে আপনি কথা বলতে গেলে আটকে যাবেন এমন কি নিজের মাতৃভাষায়ও আটকে যাবেন।

তাই আপনি যদি ইংরেজি শিখতে চান তাহলে প্রথমে জোরে জোরে কথা বলতে হবে। একটি ওয়ার্ডও যদি পারেন তবে সেটাই জোরে বলুন। উচ্চারণ যাই হোক আগে মুখ দিয়ে জোরে বলে দেখুন। ধীরে ধীরে জড়তা কেটে যাবে।

2.Read daily news paper loudly & try to know the word meaning.

আপনি যখন কথা বলা শুরু করবেন তখন শব্দার্থ খুঁজে পাবেন না, যদিও আপনি অনেক শব্দার্থ জানেন। তার পরেও বলতে হবে। বার বার বলার কারণে দেখবেন একই শব্দ বার বার চলে আসছে। তখন যদি আপনি নিয়মিত দৈনিক ইংরেজি খবরের কাগজ পড়েন তবে নতুন নতুন শব্দ আপনি খুঁজে পাবেন। আর কথা বলার সময় অটোমেটিকভাবে দেখবেন নতুন নতুন শব্দগুলো আপনার মাথায় আসছে।

যদি নিয়মিত পেপার না পড়েন তবে কয়েকদিন কথা বলার চেষ্টা করে নিজের আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। তাই প্রতিদিন একটি ইংরেজি পত্রিকা পড়বেন খুব ভালোভাবে অর্থসহ। যদি সময় না পান তবে অন্তত একটি হলেও ইংলিশ আর্টিকেল পড়বেন—– ইংরেজি পত্রিকার মধ্যে আমার কাছে ডেইলি স্টার অনেক ভালো মনে হয়। আপনি এটা পড়তে পারেন।

3.Always talk & think in English.

সবসময় আপনাকে ইংলিশ বলতে হবে। আপনি যে ভাষাতেই দক্ষ্য হতে
চান সে ভাষায় অন্তত ৩ মাস লাগাতার কথা বলতে হবে এবং চিন্তা করতে হবে। আমরা আমাদের মাতৃভাষাও শিখেছি বলতে বলতে। সুতরাং ভাষা শিখতে হলে বলার কোনো বিকল্প নেই।

ভুল হবে এটাই স্বাভাবিক,ভুল না হওয়াটাই অস্বাভাবিক। ছোট বেলায় আমরা যখন কথা বলতাম তখন কত ভুলই না করতাম কিন্তু তখন আমাদের লজ্জা ছিলনা। তাই আমরা ভাষাও শিখতে পেরেছি। এখন লজ্জার কারণে আমরা শিখতে পারিনা। তাই ভাষা শিক্ষার সময় শুধু বলার উপর জোর দিতে হবে। কথায় আছে বলতে বলতে বক্তা। একমাস চেষ্টা করে দেখুন। আপনি আপনার পরিবর্তণ দেখতে পাবেন। আপনি নিজেও নিজের উন্নতির কথা চিন্তা করতে পারবেন না ,যদি মনদিয়ে চেষ্টা করেন। তাই কথা বলুন অতঃপর বলুন।শুধুই ইংলিশে।

4.Try to listen native English speak’s talk 2-3hours everyday.

দিনে অন্তত ২-৩ ঘন্টা ইংরেজি শুনুন। না শুনলে বলতে ইচ্ছে করবেনা। আমরা একটি গান কয়েকবার শুনলেই কেমন যেন গাইতে চেষ্টা করি বা মন থেকে ইচ্ছে করে। অনুরুপভাবে আপনি যদি অন্যভাষা বার বার শুনতে থাকেন তখন আপনার অজান্তেই সে ভাষা আপনার মুখ থেকে বেড়িয়ে আসবে।

লক্ষ্য করলে দেখবেন ছোট ছোট বাচ্চারা প্রথমে বড়দের থেকে কথা শুনে, কয়েকবার শুনার পর সেও বলতে চেষ্টা করে। যখন বলতে না পারে তখন দেখবেন বার বার প্রশ্ন করে আব্বু এটা কি? আম্মু এটা কি? মানে হচ্ছে এভাবে প্রশ্ন করে করে সে বার বার শুনে যেন বুঝতে পারে, তার পর হঠাৎ করে সেও বলতে শুরু করে। প্রথমে ভুল হয়, পরে ধীরে ধীরে সে উচ্চারণ ঠিক করে নেয়।

এভাবে শুনে শুনে একটি শিশু কথা বলা শিখে যায়। তাই আমি বলব একমাস এভাবে শুনে দেখুন আপনিও বলতে পারবেন।

5.Do not think about grammatical problem.

ভাষা শিক্ষার শুরুতে কখনও গ্রামারের দিক লক্ষ্য করা উচিৎ নয়। কারণ ভাষা আগে আসছে, আর গ্রামার পরে তৈরি করা হয়েছে। তাই প্রথমেই গ্রামারের চিন্তা একদম করা যাবেনা। প্রথম দিকে শুধু বলার চেষ্টা করতে হবে।ভুল হোক তাতে কোনো সমস্যা নেই।

যদি প্রথমেই গ্রামারের চিন্তা করেন তবে ধরে নিন আপনি কথা বলা আর শিখতে পারলেন না। তাই যথা সম্ভব প্রথম দিকে গ্রামার নিয়ে বসে না থেকে কথা বলার উপর জোর দিন। আশা করি ধীরে ধীরে পরে আপনি সব বুঝতে পারবেন—-

6. Try to sing song in English.

ইংলিশ গান গাইতে চেষ্টা করুন।আপনি যদি গান শুনেন তবে বুঝতে পারবেন তারা কি সুন্দর করে উচ্চারণ করে। আপনি তিন চারটা গান শুনে মুখস্ত করে গেয়ে দেখুন। আপনার ভিতরে একটা পরিবর্তন চলে আসবে।আপনার জড়তা কমে যাবে। উচ্চারন আরও সুন্দর হবে।

বিশেষ করে কথা বলার সময় সংক্ষেপে উচ্চারিত শব্দগুলো বুঝতে পারবেন। আমরা কথা বলার সময় যেমন সংক্ষেপে বলে থাকি,তেমনিভাবে গানের কথাগুলো মিল করার জন্য সংক্ষেপে করা হয়ে থাকে। কয়েকটি গান মুখস্ত করে চেষ্টা করে দেখতে পারেন। আমার কথায় বিশ্বাস নাও হতে পারে কিন্তু আপনি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন।

7. Record your speech or song then listen to your speech.

যা বলবেন তা রেকর্ড করবেন। তারপর নিজে নিজে শুনুন। আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন, আপনার কি ধরণের ভুল হচ্ছে বা উচ্চারণে কোথায় সমস্যা হচ্ছে। কিছুদিন চেষ্টা করে দেখুন আপনার ইংরেজি কথাবলার স্পিড এসে যাবে।

You will be fluent in English very soon. এটা আমার বানানো কথা নয়। কয়েকদিন চেষ্টা করে দেখুন, আপনার পরিবর্তন আপনিই বুঝতে পারবেন।

8. Say English story or about your daily life & record.

একমিনিট পারলে এক মিনিটই বলুন। নির্দিষ্ট টপিক নিয়ে কথা বলুন। টপিকের বাহিরে যাবেন না। না পারলে টপিক সম্পর্কে পড়া শুনা করুন। দেখবেন প্রথম দিন ২০ সেকেন্ড, পরের দিন ১মিনিট, পরের দিন পাঁচ মিনিট, তার পরের দিন ১০ মিনিট। এভাবে ঘন্টার পর ঘন্টা আপনি কথা বলতে পারছেন।

আমি এখানে শুধু শুধু বকবক করতে চাই না। আমি বলব আপনি চেষ্টা করে দেখুন তবে আপনি নিজেই প্রমান পাবেন। কেউ কোনো ভাষায় কথা বলা মায়ের গর্ভ থেকে শিখে আসেনি। সবাই পৃথিবিতে এসে ভাষা শিখেছে।

9.Try to write 1page minimum daily in English.

আপনি যদি প্রতিদিন কথা বলার পাশা পাশি অন্তত এক পৃষ্ঠা ইংলিশ লিখেন তবে আপনার লিখার স্কিলটাও ডেভেলপ হবে। তাছাড়া লিখার মাধ্যমে বাক্য তৈরি করার ফলে আপনার বাক্য তৈরির কৌশলটা মাথায় গেঁথে যাবে। এতে করে আপনার কথা বলার সময় বাক্য তৈরির স্পিডও বাড়বে। দ্রুত কথা বলতে পারাটা ফ্লুয়েন্সি না, বরং দ্রুত যে কোনো বাক্য তৈরি করতে পারাটাই ফ্লুয়েন্সি।

নিয়মিত লিখার মাধ্যমে দেখা যাবে আপনি যে কোনো বিষয়ে লিখতেও পারবেন। তখন আপনি চাইলে ইংলিশ আর্টিকেল লিখে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি ইংরেজিতে গল্প, স্টোরি বা আর্টিকেল লিখতে পারেন অথচ টাকা ইনকাম করতে পারছেন না? তবে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আমরা আপনাকে টাকা ইনকামের রাস্তা বলে দেব।

10.Not only word meaning but also phrase words.

You have to learn word meaning & phrase word. আপনি শব্দার্থ জানলেই হবে না। আপনাকে ফ্রেইজ ওয়ার্ড গুলোও জানতে হবে। কথা বলার সময় Phrase word খুবই কাজে লাগে।

আমরা সবাই চাই কিভাবে অল্প কথায় বেশি ভাব বুঝাতে পারি। তাই আমরা এমন কিছু সংক্ষিপ্ত শব্দ ব্যবহার করে থাকি যেগুলো সত্যিই ভাষার সম্পদ। যাই হোক শব্দার্থের সাথে সাথে ফ্রেইজ ওয়ার্ডও আয়াত্ব করতে হবে এবং যায়গামত ব্যবহার করতে হবে।

11.Don’t worry!!

ভাষা শেখার ক্ষেত্রে কোনোভাবেই অসস্থি বোধ করা যাবেনা। একদম স্বাধীনভাবে কথা বলতে হবে। কারও সাথে কথা বলতে অসস্থি হলে বা কেউ যদি বেশি আপনাকে তিরস্কার করে তবে এমন বন্ধু বাদ দিন। যারা ইংরেজি শিখতে চায়, এমন বন্ধু নিন। You should make friendship with English lover for 3 months. যেন দেখা হলেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধসহ বন্ধুর সাথে ইংলিশে স্পিকিং করতে পারেন।

আমি ইংরেজি শেখার কোনো উপকারিতা বলিনি, তবে কয়েকটি না বললে নয়।

প্রথমত ইংরেজি না জানলে আপনাকে কেউ চাকুরি দিবে না। আর যদি বলেন চাকুরি করবেন না, তবে বলব আপনি ভালো মানের ব্যবসাও করতে পারবেন না।

সব মিলে ইংরেজিতে কথা বলা শিখে নেয়াই বেটার। অন্তত পরবর্তী প্রজন্মকে শেখাতে পারবেন। কারণ সময় এখন ইংলিশদের। অদূর ভবিষ্যতে চীন আর স্পেন হয়ত এগিয়ে আসবে তাদের প্রতিযোগিতায়।

আমরা কেন যে ঘুমিয়ে আছি তাও জানিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *