Breaking News
Home / VIRAL / কৃত্রিম ফুসফুস নিয়ে কাটালেন ৬৮ বছর!

কৃত্রিম ফুসফুস নিয়ে কাটালেন ৬৮ বছর!

একদিকে যেখানে আমাদের পরিবেশ দূষিত, আমরাও নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছি নানা সময়ে সেখানে দাঁড়িয়ে এই মানুষটি ৬৮ বছর বেঁচে থাকলেন নকল ফুসফুস নিয়েই। ভাবতে পারছেন না তো? আসলে বাঁচার তাগিদে তাকে এর শরণাপন্ন হতেই হয়েছে। তিনিই কিন্তু পৃথিবীর একমাত্র মানুষ যিনি ব্যবহার করেছেন লোহার ফুসফুস। ১৯৫০ সালে পুরো আমেরিকাকে গ্রাস করেছিল পোলিওমায়েলাইটিস ভাইরাস। সেইসময় প্রায় প্রতি গরমকালেই মারা যাচ্ছিলো প্রায় ১৫ হাজার শিশু। তবে ১৯৫২ সালে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছিল। প্রায় ৫৮ হাজার শিশুর পোলিও রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছিলো তখন। টেক্সাসে আক্রান্ত হয়েছিল ২১ হাজার। তাই গরম পড়তেই সেখানে সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয় সরকারের তরফে। পোলিও ও গরমে একেবারে নাজেহাল অবস্থা হয়েছিল টেক্সাসবাসীর।

এমন সময়েই জুলাই নাগাদ বৃষ্টি নামে। আনন্দে বাবা-মারা সন্তানদের রেখে বাইরে বেরিয়ে আসেন। সেইসময়ে ডালাসের ছোট্ট পলও লুকিয়ে বেরিয়ে যায়। প্রায় এক ঘণ্টা বৃষ্টিতে ভেজার পর ফিরে আসে সে। কিন্তু তারপরেই মারাত্মক জ্বর। সঙ্গে গলা মাথা ব্যথা এবং সারা শরীর লাল হয়ে গিয়েছে।

ডাক্তারকে জানালে তিনি এগুলিকে পোলিওর উপসর্গ বলেন। কিন্তু যেহেতু সব হাসপাতাল ভর্তি, তাই পলকে নিয়ে হাসপাতালে ছুটতে মানা করেন তিনি। তবে সেই রাতেই তার শারীরিক অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়। শেষমেশ আলেকজান্ডার দম্পতি তাদের ছেলেকে নিয়ে যান পাল্যান্ড হাসপাতালে। তবে সেখানেও সব বেড ভর্তি। অবশেষে এক চিকিৎসক পলকে নিয়ে দৌড়ান অপারেশন থিয়েটারে।

ফুসফুসে যে ফ্লুইড জমেছিলো তা বের করেন তিনি। তবে যেহেতু তার ফুসফুস বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তাই “আয়রন লাং” নামক কৃত্রিম ফুসফুসে তাকে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এতে রোগীর মাথা থাকত সিলিন্ডারের বাইরে। পলের জ্ঞান ফিরলে সে প্রথমে ব্যাপারটি বোঝেনি। পরে অবশ্য সব জানতে পারে। সে সুস্থ হলেও পক্ষাঘাতে শরীরের নীচের অংশ অসাড় হয়ে গিয়েছিলো। তাই এরপরেও তাকে সেই মেশিনের নিচে শুয়ে থাকতে হতো।

Check Also

কাজের টাকা না দেয়ায় মালিকের পৌনে ৬ কোটির বাড়ি গুঁড়িয়ে দিলেন মিস্ত্রি

বাড়ি তৈরির কাজ করিয়েও পুরো টাকা না দেওয়ায় শাস্তি পেলেন জে কুর্জি নামের এক বাড়িওয়ালা। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *