Breaking News
Home / LIFESTYLE / চিহ্ন দেখে বুঝে নিন প্লাস্টিকের পাত্র কতদিন ব্যবহার করবেন

চিহ্ন দেখে বুঝে নিন প্লাস্টিকের পাত্র কতদিন ব্যবহার করবেন

প্লাস্টিকের তৈরি পাত্রের ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। দেখবেন, প্রতিটি প্লাস্টিকের বোতল বা পাত্রের নিচে ত্রিভুজাকৃতি ছাঁচের মধ্যে কিছু নম্বর লেখা। এই নম্বরই নির্দেশ করে প্লাস্টিকের তৈরি ওই পাত্রটি কত দিন বা কতবার ব্যবহার করা উচিত। তাহলে জেনে নিন কোন নম্বরের কী মানে-

ত্রিভুজের মধ্যে ‘১’ লেখা থাকলে তার অর্থ হল- পাত্রটি পলিথাইলিন টেরেপথ্যালেট জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি। অর্থাৎ, এই প্লাস্টিকের পাত্রগুলো মাত্র একবারই ব্যবহারযোগ্য। একবারের বেশি এগুলো ব্যবহার করা মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়।

পাত্রের নিচে ত্রিভুজের মধ্যে ‘২’ লেখা থাকলে তার অর্থ, পাত্রটি ঘন, অস্বচ্ছ পলিথিন বা এইচডিপিই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি। ডিটারজেন্ট, শ্যাম্পু, টয়লেট ক্লিনারের বোতল এই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি হয়। এগুলোতে খাবার বা পানি রাখা মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়।

ত্রিভুজের মধ্যে ‘৩’ লেখা থাকলে তার অর্থ হল- এই ধরনের পাত্র পলিভিনিল ক্লোরাইড বা পিভিসি দিয়ে তৈরি। খাবারের শক্ত মোড়ক বা রান্নার তেলের পাত্র এই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি করা হয়। একবারের বেশি এগুলো ব্যবহার করা মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়।

পাত্রের নিচে যদি ‘৪’ লেখা থাকে তাহলে তার অর্থ হল- এই ধরনের পাত্র এলডিপিই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি। এই ধরনের পাত্রে একাধিকবার পানীয় পানি বা খাবার রাখা যেতে পারে। তবে সপ্তাহখানেকের বেশি ব্যবহার না করাই ভালো।

যদি পাত্রের নিচে ত্রিভুজের মধ্যে ‘৫’ লেখা থাকে তাহলে তার অর্থ হল, এই ধরনের পাত্র ব্যবহার করা একেবারে নিরাপদ। সসের বোতল, পানির বোতল বা সিরাপের বোতল এই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি।

ত্রিভুজের মধ্যে ‘৬’ লেখা থাকলে তার অর্থ হল, এই ধরনের পাত্র পলিস্টিরিন বা স্টাইরোফোম জাতীয় উপাদান দিয়ে তৈরি। এই জাতীয় পলিথিন দিয়ে তৈরি পাত্রে খাবার গরম করা মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়। আর বেশি ব্যবহার না করাই ভালো।

ত্রিভুজের মধ্যে ‘৭’ লেখা থাকলে তার অর্থ হল, এই ধরনের পাত্র ব্যবহার করা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর ও ঝুঁকিপূর্ণ। খাবার বা কোনো রকম পানীয় রাখা একেবারেই উচিত নয়।

Check Also

রাসায়নিক প্রসাধনী ছাড়া খুশকি তাড়ানোর ১০টি কার্যকর উপায়

খুশকি দূর করার জন্য এখন আর দামি প্রসাধনী সামগ্রী কিনে পকেট ফাকা করার প্রয়োজন নেই। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *