Breaking News
Home / LIFESTYLE / যেভাবে ভলোবাসার প্রতীক হয়ে উঠেছে চকোলেট

যেভাবে ভলোবাসার প্রতীক হয়ে উঠেছে চকোলেট

প্রিয়জনকে উপহার দেওয়ার জন্য চকোলেটের বিকল্প নেই। ভ্যালেন্টাইন সপ্তাহের তৃতীয় দিন চকোলেট ডে পালন করা হয়। কারণ প্রিয়জনকে চকোলেট উপহার দেওয়া ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে।

চকোলেটের অনেক অর্থ আছে। ভালোবাসা ও আবেগের প্রতীক চকোলেট। সেই সঙ্গে আপনার প্রিয়জনকে উপহার দেওয়ার জন্য চকোলেট খুব সুন্দর একটি উপহার। খুব সামান্য চকোলেট দেওয়ার মাধ্যমেই আপনি তার কাছে স্পেশাল হয়ে উঠতে পারবেন।

চকোলেটের ইতিহাস অনেক পুরনো। ১৬০০ সাল থেকে চকোলেটের সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক প্রথম উঠে আসে। তৎকালীন শাসক একটা বিষয় লক্ষ করলেন যে চকোলেট খেলে তার মধ্যে ভালোবাসা বৃদ্ধি পায়। তখন তরল চকোলেটের সময় ছিল। কথিত আছে, এক দিনে যদি কেউ তিন গ্যালন চকোলেট খায় তাহলে তার ভালোবাসা বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে চকোলেটের প্রতি ভালোবাসাও বাড়ে। এরপর ১৮০০ সালে রিচার্ড ক্যাডবেরি চকোলেট বার তৈরি করে, চকোলেটের সুন্দর সুন্দর বক্স তৈরি করে। সে সময় শুধু ধনীরা না সব শ্রেণির মানুষই চকোলেট খেতে পারত। এরপর ভিক্টোরিয়ান আমলে চকোলেট ভালোবাসার প্রতীক হয়ে দাঁড়ায়। এরপর ১৯০০ সালে রুসেল স্ট্রোভের হার্ট শেপডের চকোলেট বক্স তৈরি করে। এতে করে ভালোবাসার উপহারে পরিণত হয় চকোলেট।

চকোলেটের ‍উপাদানের মধ্যে দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হলো থ্রিব্রোমাইন ও ফেনিলেথিলামিন, যা আমাদের ব্রেনকে আনন্দের অনুভূতি দেয়। আপনা-আপনি মন ভালো হয়ে যায়। এ জন্য প্রিয়জনকে উপহার দিতে চকোলেটের জুড়ি নেই। আধুনিক যুগের রোমিও জুলিয়েট থেকে শুরু করে সবার কোনো সেলিব্রেশন পূর্ণ হয় না মিষ্টি কোনো খাবার ছাড়া। আপনার পচ্ছন্দের মানুষকে একটা দিন না হয় আপনার ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে চকোলেট উপহার দিন।

সূত্র : দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া।

Check Also

রা’ন্না ছাড়াও মাইক্রোওভেন দিয়ে এই কাজ গুলো ক’রতে পারেন যা আগে কখনই করেন নি!

মাইক্রোওভেন এখন প্রায় প্রতিটি মধ্যবিত্ত পরিবারেই সামিল৷ খাবার গরম ক’রতে মাইক্রোওভেনের ব্যবহার আম’রা সবাই জানি৷ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *