Breaking News
Home / HEALTH / বার্ড ফ্লু আতঙ্ক, মাংস বা ডিম খাওয়া কতটা নিরাপদ?

বার্ড ফ্লু আতঙ্ক, মাংস বা ডিম খাওয়া কতটা নিরাপদ?

করোনার মধ্যে নতুন করে উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে বার্ড ফ্লু৷ ১১ রাজ্যে দেখা গিয়েছে বার্ড ফ্লুর সংক্রমণ৷ মুরগি ছাড়াও বিপুল পরিমাণে হাঁস, কাক এবং পায়রার মৃত্যু হয়েছে৷ জানা গিয়েছে, সম্প্রতি দিল্লির চিড়িয়াখানায় ব্রাউন ফিস প্যাঁচার শরীরেও বার্ড ফ্লুর জীবানু মিলেছে৷ বিভিন্ন প্রাজাতির পাখির মধ্যে এই রোগের সংক্রমণ নতুন করে উদ্বেগ বাড়িয়ে তুলেছে৷ হাঁস বা মুরগির মাংস বা ডিমের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে এই রোগের বিস্তার নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রশাসন৷ যা পোল্ট্রি শিল্পকেও ব্যাপক ভাবে আঘাত করেছে৷

অ্যাভিয়ান (পাখি) ইনফ্লুয়েঞ্জা (ফ্লু) বা বার্ড ফ্লু এক ধরনের ভাইরাস৷ এই ভাইরাস বন্য পাখিদের মধ্যে প্রাকৃতিক ভাবেই দেখা যায়৷ এই ভাইরাস হাঁস-মুরগি বা যে কোনও প্রাণীর মধ্যে সংক্রমিত হতে পারে৷ একটি মুরগি থেকে অন্য মুরগি বা যে কোনও প্রাণীর মধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ বহু পাখি বার্ড ফ্লুতে মারা যায়৷ এমনকী পাখি থেকে এই ভাইরাস মানব দেহেও সংক্রমিত হতে পারে৷

অ্যাভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে বেশ কিছু পদক্ষেপ মেনে চলা উচিত৷ এই ভাইরাস আগুনের তেজে নষ্ট হয়ে যায়৷ তাই ৭০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় মরগি বা হাঁসের মাংস রান্না করা হলে এই ভাইরাস মরে যাবে৷ থার্মোমিটার না পাওয়া গেলে মাংস লাল না হওয়া পর্যন্ত রান্না করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে৷

অ্যাভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা ফ্রিজের মধ্যেও বেঁচে থাকতে পারে৷ ঠা্ন্ডার মধ্যে বেঁচে থাকে বার্ড ফ্লুর ভাইরাস৷ যারা হাঁস-মুরগির মাংস হাত দিয়ে ধরছেন, তাঁদেরও ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নেওয়া উচিত৷ দোকানও স্যানিটাইড করা উচিত বলে নির্দেশিকা হু-এর৷

বার্ড ফ্লুর লক্ষণ কি? বার্ড ফ্লুর প্রধান লক্ষণ হল জ্বর, সর্দি-কাশি, মাথ যন্ত্রণা৷ সেই সঙ্গে গলা ফোলা, মাংস পেশিতে ব্যাথা, পেটের সমস্যা, চোখে ইনফেকশন এবং পেটের সমস্যা দেখা দেয়৷

Check Also

পাই’লস সম’স্যার চির’স্থা’য়ী সমা’ধান লা’উ শা’ক!

পাইলস স’মস্যার চির’স্থা’য়ী – শীতের একটি সু’স্বাদু সব’জি হচ্ছে লা’উ শাক। এটি একটি ফ’লিক এসিড ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *