Breaking News
Home / HEALTH / যে দশ খাবারে ক’রো’না প্রতিরোধ সম্ভব!

যে দশ খাবারে ক’রো’না প্রতিরোধ সম্ভব!

করোনার এই সময়ে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর বিভিন্ন পদ্ধতির খোঁজে ঘাম ঝড়াচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। আমেরিকান প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ জেমস ডিক্লেন্টনিও তার নতুন বই দ্য ইমিউনিটি ফিক্সে করোনার দিনে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর বিভিন্ন পদ্ধতির সন্ধান দিয়েছেন। জেমসের কথায় হাতের কাছেই আছে এমন কিছু খাবার যা করোনার দিনে সহজেই প্রতিরোধের দেওয়াল তৈরি করতে পারে শরীরে।

অনেকেই সেলেনিয়াম সম্পর্কে খুব বেশি জানে না সেলেনিয়ামের ঘাটতি করোনভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। আবার সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, যে ভিটামিন ডি এর অভাব করোনার হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। অনেকগুলি ক্ষেত্রেই দেখা গেছে যে, ভিটামিন ডি এর ঘাটতির কারণে শরীরে করোনার সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে। প্রচুর পরিমাণে রোদে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়।

লবণের মধ্যে পাওয়া ক্লোরাইড রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাতে ‌অনেক লোকেই বুঝতে পারেন না যে লবণ কোনও বিষ নয়, এটি শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় খনিজ।
বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন যে, বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি জিঙ্কের অভাব রয়েছে। বিজ্ঞানীদের মতে, বহু প্রদেশের লোকেরাই জিঙ্কযুক্ত খাবার কম খান। ঝিনুক, কাঁকড়া, বাদাম এবং বীজে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। দস্তার ঘাটতি সহজেই আপনার শরীরে অনেকগুলি ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে।

জিঙ্কের মতো, তামা শরীরের জন্য একটি প্রয়োজনীয় খনিজ। তামা শরীরের ইমিউন সিস্টেমের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি শরীরকে আয়রন ব্যবহারে সহায়তা করে।

ভিটামিন সি মানুষের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ভিটামিন সি সংক্রমণে লড়াইয়ের প্রতিরোধক কোষের ক্ষমতা বাড়ায়। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে সংক্রমণের পরে ভিটামিন সি গ্রহণ করা কার্যকরী নয়। বরং নিয়মিত যোগান থাকলেই ভালো।

ফুসফুসের প্রদাহ রোধ করে গ্লুটাথিয়ানিন জাতীয় খাবার। এই ধরনেক খাবার রাখা উচিত ডায়েটে।

এন-এসিটাইলসিস্টাইন এমন একটি প্রোটিন যা দেহে গ্লুটাথিয়নের মাত্রা বাড়াতে সহায়তা করে। সর্দি এবং ফ্লু সহজেই এন-এসিটাইলসিস্টাইন দ্বারা সৃষ্ট হয় না। আলফা লাইপোইক অ্যাসিড অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসাবে কাজ করে। এর মাধ্যমে দেহের প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৃদ্ধি পায়।

Check Also

পাই’লস সম’স্যার চির’স্থা’য়ী সমা’ধান লা’উ শা’ক!

পাইলস স’মস্যার চির’স্থা’য়ী – শীতের একটি সু’স্বাদু সব’জি হচ্ছে লা’উ শাক। এটি একটি ফ’লিক এসিড ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *