Breaking News
Home / VIRAL / কুয়োয় পড়ে যাওয়া সন্তানকে মুহূর্তে রক্ষা করলো মা বাঁদর, ভিডিও ভাইরাল

কুয়োয় পড়ে যাওয়া সন্তানকে মুহূর্তে রক্ষা করলো মা বাঁদর, ভিডিও ভাইরাল

মা আর সন্তানের সম্পর্ক পৃথিবীর সব চাইতে নিখাদ সম্পর্ক। তাই হয়ত বলা হয় এই পৃথিবীর সব চাইতে গরীব সে যার মা নেই।কারণ একজন মা সন্তানের জন্য যতখানি ঝুঁকি নেন, ততখানি ঝুঁকি এই পৃথিবীতে কেউ নেয় না। এমনকি বাবাও নয়। এমনটা মানুষদের ক্ষেত্রে হোক অথবা প্রাণীদের ক্ষেত্রে, সবার ক্ষেত্রেই সমানভাবে প্রযোজ্য। যে কারণে বিশ্বের প্রতিটি প্রাণীই যুগে যুগে তাঁর মাতৃত্বের প্রমাণ দিয়ে আসছে।

পশুদের ক্ষেত্রে এমন নিখাদ ভালোবাসার প্রমাণ দেওয়া অজস্র ভিডিও আমরা এর আগেও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতে দেখেছি। কখনো ভাইরাল হয়েছে ইঁদুরের জলে ডুবে যাওয়া গর্ত থেকে সন্তানদের রক্ষা করার ভিডিও, কখনো ভাইরাল হয়েছে খরস্রোতা নদীতে হঠাৎ জলে পড়ে যাওয়া হস্তি শাবককে রক্ষা করার ভিডিও, কখনো অন্য কিছু। ঠিক তেমনই এবারও আরও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

সম্প্রতি ভাইরাল হ‌ওয়া ভিডিওটি মা সন্তানের সেই নিখাদ সম্পর্ককেই আবার তুলে ধরলো। এই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে ছানাকে কুয়োর মধ্যে পড়তে দেখে বাঁদর মা ছুটে যায়। কুয়োর মধ্যে পড়ে যাওয়ার পর হাজার কসরত করেও যখন ছোট্ট ছানা কুয়ো থেকে উঠতে পারছে না। তখন মা বাঁদরটি বুদ্ধি করে উপায় বের করে। আর তারপর নিজের জীবনের পরোয়া না করেই অসাধারণ দক্ষতায় নিজের সন্তানকে কুয়োর থেকে তুলে আনে।

কুয়ো থেকে তোলার জন্য ওই বাঁদর তৎক্ষণাৎ যে কৌশল অবলম্বন করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। কুয়োর মধ্যে কয়েক ফুট নিচে থাকা সন্তানকে তুলে আনতে প্রথমেই সে পিছনের দুহাত দিয়ে কুয়োর গা শক্ত করে ধরে। তারপর গোটা শরীর বাড়িয়ে দেয় কুয়োর গর্তের দিকে। একবার সন্তানকে হাতের নাগালে পেতেই জাপটে ধরে সোজা উপরে তুলে নিয়ে আসে। আর এই ভিডিও দেখেই ওই বাঁদরের বুদ্ধি ও সাহিকতার তারিফ করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ার নেটিজেনরা।

এই ভিডিওটি ট্যুইটারে শেয়ার করেছেন একজন IFS অফিসার। সুশান্ত নন্দ নামের ঐ অফিসার ভিডিওটি শেয়ার করার সময় ক্যাপশনে লিখেছেন, “মায়ের এই ভালোবাসাই ওদের সেরা কম্যান্ডো করে তুলতে পারে।”

Check Also

অবিশ্বাস্য! চিনের আকাশে একসঙ্গে ৩ ঘণ্টা ঝলমল করল তিনটি সূর্য, পিছনে কোন রহস্য?

একই আকাশে তিনটি সূর্য (Sun)! না, কোনও কল্পবিজ্ঞানের কাহিনিতে পড়া অন্য গ্রহের ঘটনা নয়। সত্যিই ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *