Breaking News
Home / LIFESTYLE / যে ৯টি স্বভাব থাকলে আপনি কখনও ধনী হতে পারবেন না!

যে ৯টি স্বভাব থাকলে আপনি কখনও ধনী হতে পারবেন না!

অনেকে বলেন টাকা রোজগার করা ভাগ্যের ব্যাপার। আবার কারও মতে, নিজের পরিশ্রম ও অধ্যাবসায় থাকলে কোনও কঠিন কাজই অসম্ভব নয়। টাকা রোজগার আপনি করতেই পারেন। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল ধনবান হওয়া। আপনি রোজগার খারাপ করেন না। প্রতি মাসে সবকিছু করার পরও হাতে মোটা টাকা থাকার কথা। তবে সবমিলিয়ে কিছুতেই যেন টাকা থাকছে না।

কোনওভাবেই টাকা জমিয়ে বিত্তবান হতে পারছেন না।দিনের পর দিন কষ্ট করে উপার্জন করেও দিন আনি দিন খাই ভাব আপনার মধ্যে। কীভাবে এই দশা কাটিয়ে ছন্দে ফিরবে আপনার পকেট ও ব্যাঙ্ক ব্যালান্স? এজন্য নিজেকে নিয়ে ভাবুন। এই স্বভাবগুলো আপনার মধ্যে আছে কিনা। আপনার বিত্তবান হওয়ার পিছনে বড় বাধা এগুলো।

বিনিয়োগ : বেশ কিছুদিন রোজগার করা শুরু করলেও এখনও আপনি কোনও কিছুতে বিনিয়োগ করেননি।

কাজের বদলে টাকা : আপনি নিজের কাজটুকু করেই থেমে যান। তার ভিত্তিতে টাকা রোজগার করতে চান। আর যারা ধনী তারা জানেন কোথায় তৃকতটুকু খাটলে বেশি রোজগার হবে। সবকিছু বুঝে নিয়ে তবেই পা বাড়ান।

আয়ের গুরুত্ব : আপনি কীভাবে সঞ্চয় করবেন সেটা নিয়ে বেশি ভাবেন, কীভাবে রোজগার বাড়াবেন সেদিকে আপনার কোনও খেয়াল নেই।

জিনিস ক্রয় : আপনি সবসময় সস্তা থেকে দামী এমন জিনিস কিনে বাড়ি ভর্তি করেন যা রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষমতা আপনার নেই।

গণ্ডীর বাইরে না বেরনো : নিজে যেখানে স্বচ্ছন্দ সেই কাজই করে যাচ্ছেন, নিজের গণ্ডীর বাইরে বেরিয়ে ঝুঁকি নিতে আপনি রাজি নন। এমন করলে আর যাই হোক বড়লোক হতে পারবেন না।

স্বপ্নপূরণ : পরিবারের অন্যদের স্বপ্নপূরণ অবশ্যই করবেন তবে তার মানে এটা নয় যে নিজের স্বপ্নকে আত্মাহুতি দেবেন। নিজের স্বপ্নকে বলিদান করলে জীবনে টাকা ও সুখ কোনওটাই পাবেন না।

খরচের হাত : আপনি কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই খরচ করেন। এর পাশাপাশি যতটুকু আপনার সঞ্চয় করা উচিত তা না করে আগে খরচ করেন এবং পরে যদি কিছু বাঁচে তাহলে তা সঞ্চয় করেন।

আপনার লক্ষ্: আপনি কীভাবে, কতোটা উপার্জন করতে পারেন, সেই বিষয় আপনার কোনও ধারণা বা লক্ষ্য নেই।

আপনার মনোভাব: আপনি মনে মনে প্রথম থেকেই বিশ্বাস করেন যে জীবনে যাই হোক, কখনও ধনী হতে পারবেন না আপনি। আপনার এই মনোভাব আপনার ধনী হওয়ার ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা।

চুল উঠে যাচ্ছে? টাক পড়ে যাচ্ছে? রইল ১০টি ঘরোয়া টিপস

নারী হোক বা পুরুষ, হঠাৎ করে চুল ঝরতে শুরু করলে সকলেই টেনশনে ভুগতে শুরু করেন। কীভাবে মুক্তি পাবেন এই অকাল টাকের হাত থেকে?রইল ঘরোয়া ১০টি টিপস। বড় বড় ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়েছেন, ওষুধও খেয়েছেন কিন্তু কাজ দিচ্ছে না কিছুই। যত দিন যাচ্ছে আপনিও হয়তো আরও বেশি শঙ্কিত হয়ে পড়ছেন। কিন্তু কাঁড়ি কাঁড়ি অর্থ খরচ না-করে হাতের কাছেই থাকা কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি ব্যবহার করে দেখতে পারেন আপনি।

নারকেলের দুধ এবং নারকেল তেল মিশিয়ে ম্যাসাজ করুন।

চুলের প্রধান খাবার তেল। নিয়মিত ম্যাসাজ করে যান।

হেনা পাতা জোগাড় করুন। সরষের তেলের সঙ্গে মিশিয়ে মাথায় লাগান সপ্তাহে অন্তত দু’বার।

দই এবং বেসন মিশিয়ে লাগাতে পারেন। তবে খুব ঘন ঘন নয়।

পেঁয়াজ চুল গজানোর ক্ষেত্রে দারুণ ভূমিকা পালন করে। কাঁচা পেঁয়াজ মাথার ক্ষতিগ্রস্থ অংশে ঘষতে পারেন।

পেঁয়াজের রস এবং মধু মিশিয়ে স্ক্যাল্পে লাগান।

অলিভ অয়েল দিয়ে ম্যাসাজ করতে পারেন মাঝেমধ্যেই।

আমলা খুবই উপকারী। আমলার তেল ও নির্যাস দিয়ে মাথার ক্ষতিগ্রস্থ অংশে প্রলেপ লাগিয়ে রাখুন।

ডিমের সাদা অংশ অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করুন।

স্যাফ্রন, আমলা এবং পেয়ারা পাতা বেটে সেই মিশ্রণ মাথায় লাগিয়ে রাখুন অন্তত তিরিশ মিনিট।

মাথায় রাখবেন, কোন পদ্ধতিতে সবথেকে বেশি সুফল পাচ্ছেন সেটি নিজেকেই বুঝে নিতে হবে এবং সেই মোতাবেক আপনাকে চলতে হবে।

Check Also

হাঁড়িপাতিলের যে কোনো জেদি দাগ দূর করুন নি’মিষেই!

প্রতিদিন রান্নার কাজে হাঁড়িপাতিল অবশ্যই ব্যবহার ক’রতে হয়। এক্ষেত্রে নানা আকৃতির হাঁড়িপাতিল, কড়াই, ফ্রাইপ্যান কিংবা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *