Breaking News
Home / VIRAL / দাঁত, ঠোঁট অবিকল মানুষের মতো, ধরা পড়লো অদ্ভুত মাছ!

দাঁত, ঠোঁট অবিকল মানুষের মতো, ধরা পড়লো অদ্ভুত মাছ!

প্রকৃতির সব রহস্য এখনও উন্মোচন করতে পারেনি বিজ্ঞান। প্রকৃতির রহস্যের কাছে মানুষ এখনও খুবই নগণ্য। প্রকৃতিতে মন আশ্চর্য কিছু আছে যা এখনও মানুষের কাছে অবিশ্বাস্য। প্রকৃতি নিজে মানুষকে সেই রহস্য দেখার সুযোগ করে না দিলে মানুষ কোনোদিনই নাগাল পাবেনা সেই অদ্ভুত, অবিশ্বাস্য রসস্যের।

তেমনই এক রহস্যময় জীব সম্প্রতি অবাক করে তুলেছে মানুষকে।রহস্যময়ী সেই জীব হলো মানুষের মতন দেখতে মাছ! হ্যাঁ, একপ্রকার ম্যাচ যার শরীরের সামনের অংশ মানুষের মতন। আগেও একবার এই মাছ দেখা গিয়েছিল, তবে সেটা ছিল জলের একটু নীচে এবং খুব অল্প সময়ের জন্য। জনৈক ব্যাক্তি তাড়াহুড়ো করে সেই ছবি তোলেন এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেন।

তবে সেই সময় ছবিটি খুব একটা স্পষ্ট ছিলনা ফলে এই মাছ নিয়ে অনেক প্রশ্ন থেকে গিয়েছিল মানুষের মনে। তবে এবার আর কোনো ধোয়াঁশা নয়। ধরা পড়েছে সেই রহস্যময়ী মাছ। সেটিকে কাছ থেকে পর্যবেক্ষণ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

দেখা গেছে মাছের দাঁত এবং ঠোঁট অবিকল মানুষের মতন এবং শুধু তাই নয় মুখের গড়নের সাথেও মিল আছে মানব মুখের। সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট হওয়ার পরই ঝড়ের বেগে ভাইরাল হতে শুরু করে।

কি নাম এই মাছের? জানা যাচ্ছে এই ধরনের মাছের পোশাকি নাম ট্রিগার ফিশ।এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের জলাশয়ে এই মাছের দেখা মেলে।একটি লাল রেখা দ্বারা মাছের শরীর দুটি অংশে বিভক্ত যা বিস্তৃত ঠোঁটের ওপর থেকে শরীরের নীচের অংশ পর্যন্ত।

এই মাছের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর থেকে অনেকেই ফটোশপ করে মাছের মুখটাকে সম্পূর্ণ মানবাকৃতি দেওয়ার চেষ্টা করছেন। এই মাছের ছবি দেখে রীতিমত অবাক নেটিজেনরা।তবে জানা যায় বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীদের তালিকাতেই আছে এই মাছ। সংরক্ষণ না করতে পারলে অদূর ভবিষ্যতে বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে এই ট্রিগার ফিস।

মাছের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ হতেই অনেকে সেটিকে ফটোশপ-এর মাধ্যমে আরও বেশি মানুষের মতো করে ছবি তৈরি করে পোস্ট করতে শুরু করেছেন। ট্রোল, মিম বানিয়ে শেয়ার করছেন নেটপাড়ার বাসিন্দারা। তবে মানুষ-মুখি এমন মাছ এখন ঝড় তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

Check Also

ধনী হতে শত শত মানুষ ছুটছেন এই গ্রামে (ভিডিও)

মাটি খুঁড়তে খুঁড়তে কাকতালীয়ভাবে অচেনা পাথর হাতে পড়েছিল এক পশুপালকের। পাথরটি কী তিনি জানতেন না। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *