Breaking News
Home / VIRAL / লক ডাউনে অভাবের তাড়নায় ৩ হাজার টাকায় দুধের শিশুকে বেচে দিলেন বাবা-মা!

লক ডাউনে অভাবের তাড়নায় ৩ হাজার টাকায় দুধের শিশুকে বেচে দিলেন বাবা-মা!

লক ডাউনে অভাবের তাড়নায় ৩ হাজার টাকায় দুধের শিশুকে বেচে দিলেন বাবা-মা! – চরম সং’কটের মুখে দাঁড়িয়ে আছি সমাজ। গৃহব’ন্দী হয়ে থাকলে অর্থের অভাব, রোজগারের খুঁজে বের হলে কর্নার প্রকোপ।

এই দুই মিলে জেরবার সাধারণ মানুষ। এর থেকেও যাদের খারাপ অবস্থা যাদের তারা হচ্ছে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগু’লো। যাদের অন্নসংস্থান না হওয়ার কারণে দিনের পর দিন না খেতে পেয়ে থাকতে হচ্ছে। দুবেলা-দুমুঠো খাবার জন্য মানুষ যে কোন মূল্য দিতে রাজি।নিজে সঞ্চিত অর্থ সমস্ত শেষ হয়ে যাওয়ায় নাজেহাল অবস্থা এই মানুষগুলোর।

উপায় না পেয়ে নাড়িছেঁড়া ধন কে পরের হাতে তুলে দিতে হচ্ছে বাবা মাকে। মাত্র ৩ হাজার টাকা দিয়ে চার মাসের কন্যা সন্তানকে অন্যের হাতে বেছে নিতে বাধ্য হয়েছে বাবা মা।সেই টাকা দিয়ে অন্য দুই সন্তানের মুখে অন্ন জোগাড়ের বাবা-মা।

ভয়’ঙ্কর হলেও এই ঘটনা ঘটেছে ঘাটাল এর কাছে। দম্পতির নাম বাপন ও তাপসী খাড়া। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে যে, তাপসী অন্যের বাড়ি পরিচারিকার কাজ করতেন, বাপন ছিল বেকার। লকডাউন এর সময়ে তাপসীর কাজকর্ম চলে যায়।

এদিকে বাপন মদ খেয়ে পড়ে থাকে রাস্তায়। তাদের তিন সন্তান, পাঁচ বছরের ছেলে, দুই মেয়ে আড়াই বছরের ও চার মাসের।জানা গেছে তাপসীর বাপের বাড়ির মাধ্যমেই এই দম্পতির সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়েছিল।রাতের অন্ধকারে হাওড়া শ্যামপুর এলাকার ওই নিঃসন্তান দম্পতির হাতে তুলে দেয় ওই খাড়া দম্পতি।

কিন্তু শেষরক্ষা হয় নি ।শেষ পর্যন্ত পুলিশ এবং চাইল্ড লাইনের লোকেরা খবর পেয়ে সেখানে চলে আসেন। উ’দ্ধার করেন সেই ছোট্ট শিশুটিকে। এদিকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়েছে শুনে বাপন তাপসী গা ঢা’কা দেন। শিশুটিকে ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। জেলা শিশু সুরক্ষা আধিকারিক সন্দ্বীপ কুমার দাস বলেছেন যে,

“পুলিশের সহযোগিতায় সেই শিশুটিকে মঙ্গলবার রাতে উ’দ্ধার করে ঘাটাল মহকুমা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঠিক কি কারণে শিশুটিকে তার বাবা-মা অন্যত্র দিয়ে দিলেন তা নিয়েও আমরা তদন্ত করছি”।লকডাউন এর জেরে সমাজের আরেকটি ভ’য়ংকর দিক সবার সামনে উঠে এসেছে।

অন্য সন্তানদের ওপর নিজের মুখে অন্ন জোগাড় করার জন্য নিজের পেটে সন্তানকেই অন্য দম্পতির হাতে তুলে দিতে বাধ্য হচ্ছেন মানুষেরা। অনেকেই এর বিরোধিতা করে বলেছেন যে কখনই উচিত হয়নি এই দম্পতির নিজের পেটে সন্তান কে অন্য কারও হাতে তুলে দিতে,আবার অনেকেই বলছেন যে এই অপরাধের জন্য শাস্তি হওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই তাদের যথাযথ অন্নসংস্থানের ব্যবস্থা করে মেয়েকে তাদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হোক ।

Check Also

অবিশ্বাস্য! চিনের আকাশে একসঙ্গে ৩ ঘণ্টা ঝলমল করল তিনটি সূর্য, পিছনে কোন রহস্য?

একই আকাশে তিনটি সূর্য (Sun)! না, কোনও কল্পবিজ্ঞানের কাহিনিতে পড়া অন্য গ্রহের ঘটনা নয়। সত্যিই ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *