Breaking News
Home / INSPIRATION / দশম পাশ শ্বশুড় ও অশিক্ষিত শাশুড়ি’র উৎসাহে পুত্রবধু হলেন IAS অফিসার!

দশম পাশ শ্বশুড় ও অশিক্ষিত শাশুড়ি’র উৎসাহে পুত্রবধু হলেন IAS অফিসার!

দশম পাশ শ্বশুড় ও অশিক্ষিত শাশুড়ি’র উৎসাহে পুত্রবধু হলেন IAS অফিসার! – দশম পাশ শ্বশুর এবং অশিক্ষিত শাশুড়ি পুত্রবধূকে উৎসাহ দিয়ে আইএএস হতে কিভাবে অনুপ্রানিত করলেন জেনে নিন কথিত আছে যে এই পৃথিবীতে,

কেউ যখন কিছু করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হয়, তখন ঈশ্বরও তাকে সমর্থন শুরু করেন। যেখানে একদিকে সমাজে পুত্রবধূদের উপর অত্যাচারের গল্প সংবাদ পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়, অন্যদিকে এই সমাজে একটি গল্প বেরিয়ে আসে যে সত্যিই একটি উদাহরণ স্থাপন করতে চলেছে।

হ্যাঁ, আপনাদের সত্যিই এটাই বলতে যাচ্ছি যে সম্প্রতি একটি গল্প প্রকাশিত হয়েছে যেখানে এক নিরক্ষর শ্বাশুড়ী এবং দশম পাশ শ্বশুর তার পুত্রবধূকে উত্থাপন করেছিলেন এবং কেবল পুত্রবধুও তার নিজের নামটি সমাজের সামনে এনেছেন।এই গল্পটি কমলা নগরের শান্তি নগরের বাসিন্দা মঞ্জু আগরওয়ালের বাড়ির কথা।

যিনি তাদের বাড়িতে বাচ্চাদের পড়াতেন এবং সম্ভবত তাঁর এই উচ্চ চিন্তাই তাঁর পুত্রবধূকে নিজেকে আইএএস করে তুলেছিল। লোকেরা একদিকে যেমন পুত্রবধুদের উপর সব ধরণের বিধিনিষেধ ও হয়রানির ঘটনা ঘটাচ্ছে, আর সেখানেই এই সমাজে শ্বশুর শাশুড়ি তার পিতা-মাতার মতো পুত্রবধূকে সমর্থন করেছিলেন এবং পড়াশোনা করতে সহায়তা করেছিলেন।

যার কারণে প্রথম পুত্রবধূ অদিতি প্রথম প্রয়াসেই তিনি আইএএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। যখন তিনি এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তখন তাকে তার সাফল্য সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল। অদিতি বলেছিলেন যে আমার সাফল্যের অংশীদার হলেন শ্বাশুড়ি মঞ্জু আগরওয়াল, শ্বশুর রাজীব আগরওয়াল এবং স্বামী নিশান্ত আগরওয়াল। হ্যাঁ, আমি এটাও বলে রাখি যে অদিতি গাজিয়াবাদের মোদী নগরের দয়াবাতি মোদী পাবলিক স্কুল থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে এবং

তারপরে যখন সে কলেজে গিয়েছিল, তখন বন্ধুদের কাছ থেকে অনুপ্রেরণা পেয়ে তিনি কলেজের ভর্তির জন্য এসেছিলেন। আর অদিতি নর্দমার নিকটবর্তী লোকদের দিকে তাকিয়ে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এপিজে স্কুল অফ আর্কিটেক্টস অ্যান্ড প্ল্যানিং গ্রেটার নোইডা থেকে বিয়ে পাস করেন তিনি। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে ২০১৫ সালে তিনি আগ্রার নিশান্তের সাথে বিয়ে করেছিলেন।

এর পরে আইএএসের প্রস্তুতি শুরু হয়।তারপরে প্রথম প্রচেষ্টাটিতেই সে সাফল্য অর্জন করেছিল। আইএএস পরীক্ষায় ২৮২ তম র‌্যাঙ্ক অর্জনকারী অদিতি বলেছিলেন, সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় বসার জন্য প্রার্থীদের বেসিককে আরও শক্তিশালী করা উচিত। এই পরীক্ষাটি পাস করার পরে, অদিতি বলেছিলেন যে তিনি যখন কলেজে যাওয়ার সময় মোদী নগরের ড্রেনের কাছে বসবাসকারী লোকদের সম্পর্কে ভাবতেন,

তখনও তিনি ভাবতেন যে তাদের জন্য কিছু ভাল কাজ করবেন যাতে তারা এ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। আজ সকলেই অদিতির প্রশংসা করছে তবে একই সাথে তার শাশুড়ির শশুররও খুব প্রশংসিত হচ্ছে এবং তারপরেও আজকের সময়ে কেউ তার পুত্রবধূকে সম্মান করছে এবং তাকে এতটা সমর্থন করছে।

এটি সত্যিই গর্বের বিষয়। এই গল্পটি দেখে একটি সত্য কথা উঠে আসছে দারিদ্রতা আর সাফল্যের মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই। প্রত্যেকের দরকার কঠোর পরিশ্রম এবং ইচ্ছাশক্তি। এই দুই মিলে মিশে গেলে তবেই সাফল্য আসা সম্ভব। আপনি কোন পরিবার থেকে উঠে আসছেন সেটা এখানে মোটেই গুরুত্বপূর্ণ নয়।

আর পরীক্ষায় কত নম্বর পেয়েছেন সেটা কখনোই আপনার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিতে পারেনা। শুধুমাত্র দরকার দারিদ্রতার ভেতর থেকে এই সমস্ত মানুষগুলোকে টেনে বের করে আনা, যদিও এই বিষয়টি যদিও অতটা সহজ নয়।

Check Also

বাদাম বেচে সংসার চালাত, মেধাবী সেই মেয়েই পাড়ি দিচ্ছে নাসায়!

বাদাম বেচে, ছাত্র পড়িয়ে সংসার চালাত, মেধাবী সেই মেয়েই পাড়ি দিচ্ছে নাসায়! বাবা থেকেও নেই। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *