Breaking News
Home / NEWS / মৃত্যুপুরী ইতালিতেই সফল বিশ্বের প্রথম করোনা প্রতিষেধক, দাবি গবেষকদের

মৃত্যুপুরী ইতালিতেই সফল বিশ্বের প্রথম করোনা প্রতিষেধক, দাবি গবেষকদের

তছনছ হয়ে গিয়েছে ইতালি। করোনার হামলায় ইতালি মৃতদেহের দেশ আগেই। ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসেবে বুধবার পর্যন্ত ২৯ হাজারের বেশি মৃত। আর এই দেশেই তৈরি হয়েছে করোনার প্রথম প্রতিষেধক। দাবি এখানকার গবেষকদের।

ইতালীয় গবেষকরা জানাচ্ছেন, ইঁদুরের দেহে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি তৈরি করার পর তা মানব কোষেও কাজ করেছে। রোমের স্প্যালানজানি হাসপাতালে বিশেষজ্ঞরা করোনার প্রতিষেধক তৈরি করেছেন।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট এই টিকা ইঁদুরের শরীরে প্রয়োগ করে সাফল্য পাওয়া গেছে। এবার এটি মানব দেহেও প্রয়োগ করলে সফলতা মিলবে। রোম থেকে এই দাবির পর নড়েচড়ে বসেছে দুনিয়া।

করোনা হামলায় বিপর্যস্ত বিশ্ব। ওয়ার্ল্ডোমিটার জানাচ্ছে, ভাইরাস হামলায় সবমিলিয়ে ২ লক্ষ ৫৮ হাজারের বেশি মৃত। সর্বাধিক মৃতের দেশ আমেরিকা। সেখানে ৭২ হাজারের বেশি মারা গিয়েছেন। এছাড়া ইউরোপের বিভিন্ন দেশ, ইংল্যান্ড, জার্মানি, স্পেন, ফ্রান্সে চলছে মৃত্যুমিছিল।

এই অবস্থায় করোনার টিকা আবিস্কারের আপ্রাণ চেষ্টা চলছে বিশ্বজুড়েই। আমেরিকাতে এর আগে পরীক্ষামূলক টিকা মানব দেহে প্রবেশ করানো হয়। টিকা নেওয়া সবাই সুস্থ। তবে সেটিও পরীক্ষামূলক। জাপান ও কিউবা একটি করে ওষুধের দাবি করেছে। ইংল্যান্ডের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরাও শিম্পাঞ্জি ও বাঁদরের দেহে জীবাণু ঢুকিয়ে টিকা বের করতে মরিয়া।

এবার ইতালির গবেষকরা দাবি করলেন, টিকা বের করার। সায়েন্স টাইমস ম্যাগাজিনকে তাঁরা জানিয়েছেন, ইঁদুরের দেহে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি তৈরি করার পর তা মানবকোষেও কাজ করেছে। ইঁদুরের শরীরে তৈরি ওই অ্যান্টিবডি মানবকোষে করোনাভাইরাসকে নিষ্ক্রিয় করতে সক্ষম হয়েছে।

ভ্যাকসিনটি বাজারে আনছে ইতালির শীর্ষ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি টাকিস। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী (সিইও) লুইগি আরিসিচিও জানান, এই প্রতিষেধকই সবচেয়ে উন্নত। এটিই বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন যা মানুষের শরীর থেকে করোনাভাইরাসকে দূরে রাখতে সক্ষম। গবেষণা প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

Check Also

চলতি মাসে টানা ছয় দিন বন্ধ থাকবে ব্যাঙ্ক, মাঝে একদিন খোলা, রইলো সম্পূর্ণ তালিকা

এই সপ্তাহে ব্যাঙ্কে যদি কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকে তাহলে এক্ষুনি আপনার এই খবর জেনে রাখা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *