Breaking News
Home / HEALTH / খাবার খাওয়ার যে ৮টি নিয়ম মানলে করোনাভাইরাসের আক্রমণ ঠেকানো সম্ভব!

খাবার খাওয়ার যে ৮টি নিয়ম মানলে করোনাভাইরাসের আক্রমণ ঠেকানো সম্ভব!

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য অবশ্যই শরীরের ভেতর থেকে শক্তি থাকা প্রয়োজন। কারণ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হলেই ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের আক্রমণ সহজ হয়ে যায়। এর ফলে করোনাও খুব সহজেই শরীরকে কাবু করে ফেলবে।

তাই করোনাভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে হলে খাওয়াদাওয়ায় এমন কিছু নিয়ম পালন করতে হবে যা আমাদের শরীরকে করোনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে। চলুন জেনে নেয়া যাক সেসব নিয়মগুলো সম্পর্কে-

সুস্থ থাকতে চিনি কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। ভাইরাস ঠেকাতে অবশ্যই অতিরিক্ত চিনি বা ফ্যাটজাতীয় খাদ্য থেকে দূরে থাকুন। কারণ তা ইমিউন সিস্টেমকে কোনোভাবে সাহায্য করে না।

গরমে আইসক্রিম, কোল্ড ড্রিংক খাওয়ার প্রবণতা বেড়ে যায়। তবে করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে আইসক্রিম বা কোল্ড ড্রিংক থেকে যত দূরে থাকা যায় ততই ভালো। তবে এসময় ভালো ফ্যাট খাওয়াও জরুরি। দেশি ঘি, কোল্ড প্রেসড তেল, বিশেষ করে নারিকেল তেল ঠাণ্ডা লাগার হাত থেকে বাঁচায়।

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে খুব বেশি মাছ-মাংস, রেড মিট খাওয়া যাবে না, এমন কোনো কথা নেই। তবে ছানা, পনির, দই, ডালজাতীয় খাবার বেশি করে খান। সেই সঙ্গে খাদ্য তালিকায় রাখুন সবুজ শাকসবজি আর ফলও।

রান্না করে খাওয়ার পাশাপাশি কাঁচা খাওয়া যায় এমন কিছু খাবারও রাখতে হবে তালিকায়। প্রতিদিন কিছুটা কাঁচা খাবার খাবেন। তবে তা খাওয়ার আগে অবশ্যই খুব ভালো করে ধুয়ে নিন।

খাবারের তালিকায় অবশ্যই পর্যাপ্ত প্রোটিন রাখুন। তবে প্রাণিজ প্রোটিনের চেয়ে গুরুত্ব দিন উদ্ভিজ প্রোটিনের উপর। ডাক্তারের নিষেধ না থাকলে ছাতু, ছোলা, রাজমা খেতে পারেন। সেই সঙ্গে পানি খান বেশি পরিমাণে।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে যেহেতু বাড়িতেই বেশি থাকার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে, তাই সক্রিয় থাকার ওপর খুব বেশি জোর দিতে হবে। ব্যায়াম করুন ঘরের মধ্যেই। খুব বেশি প্রসেসড ফুড খাবেন না।

বাড়িতে বাদাম, নানা ধরনের বীজ ইত্যাদি সংগ্রহ করে রাখুন। এগুলো শরীরে শক্তি যোগায়। তাছাড়া এগুলো দ্রুত নষ্ট হয় না এবং অনেকদিন সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়।

পরিস্থিতি যদি খারাপ হয়ে যায় তবে ডাল, ভাত, আটা, ঘি, তেল, কিছু সংগ্রহযোগ্য ফল ও সবজি ঘরে রাখুন। যাতে বাইরে বের না হয়ে কয়েকটা দিন চালানো সম্ভব হয়।

Check Also

হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারে আরও সতর্ক হতে হবে

করোনা মহামারীর শুরুর পর থেকে হাতের জীবাণু ধ্বংস করতে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার অনেকাংশে বেড়ে গেছে। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *