Home / LIFESTYLE / বাড়িতে বসেই মেটান বিদ্যুতের বিল, জেনে নিন ৫ সহজ পদ্ধতি

বাড়িতে বসেই মেটান বিদ্যুতের বিল, জেনে নিন ৫ সহজ পদ্ধতি

ভারতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২৪ শে মার্চ থেকে ১৪ ই এপ্রিল পর্যন্ত জারি হয়েছে লকডাউন। আর এই লকডাউন আগামী দিনেও চলতে পারে এমনটাই পূর্বাভাস পাওয়া যাচ্ছে। পাশাপাশি যদিওবা লকডাউন ওঠে, এক ধাক্কায় তা উঠবে না এমন ইঙ্গিতও মিলছে। এমত অবস্থায় ডিজিটাল লেনদেনে সাবলীল হতে চাইছেন অনেকেই, কিন্তু বাধ সাজছে বয়স। অনেকে আবার ভয়ে এসব পথে পা রাখছেন না। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে এই ডিজিটাল লেনদেনই হলো সব থেকে সুরক্ষিত পথ।

কারন লকডাউন চলার কারণে আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। অথচ আমাদের দিতে হবে বিদ্যুতের বিল, ফোনের বিল ইত্যাদি ইত্যাদি। আর এসবের কারণে ডিজিটাল লেনদেনের প্রতি ধাতস্থ হয়ে বিদ্যুতের বিল দেওয়ার সহজ ও সুরক্ষিত ৫ টি পদ্ধতি নিয়ে আমাদের এই প্রতিবেদন।

যে সহজ ও সুরক্ষিত ৫ টি পদ্ধতিতে আপনি বাড়িতে বসেই বিদ্যুতের বিল জমা দিতে পারবেন

১) বিদ্যুতের বিল জমা দেওয়ার সব থেকে সুরক্ষিত ও সহজ পদ্ধতি হলো পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ব্যবহার করে। এর জন্য আপনাকে www.wbsedcl.in লিঙ্কে ক্লিক করতে হবে। তারপর সামনে উঠে আসা অপশনগুলি থেকে বেছে নিতে হবে ‘Online Payment’ অপশনটি।

তারপর সেখানে আপনাকে বেছে নিতে হবে ‘Quick Pay’ অপশনটি। সেখানে কনজিউমার আইডি ও ক্যাপচা দিয়ে ‘Procced’ করলে আপনার বিলের বিস্তারিত দেখতে পাবেন। সেখানে আপনি যত মাসের ইচ্ছা বিল পেমেন্ট করার জন্য বেছে নিয়ে পরবর্তী পর্যায়ে চলে যান। পেমেন্ট করার জন্য আপনি ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড, নেট ব্যাঙ্কিং, UPI যেকোন একটি বেছে নিতে পারেন।

২) বিদ্যুতের বিল দেওয়ার জন্য পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ বন্টন নিগমের একটি অ্যাপ রয়েছে, যার নাম হল ‘Vidyut Sahayogi’। এই অ্যাপটি ইনস্টল করে অতি সহজেই আপনি আপনার বিদ্যুতের বিল জমা দিতে পারবেন।

অ্যাপটি ইনস্টল করার পর রেজিস্টার করার জন্য একটি মোবাইল নম্বর দিতে হবে। যেখানে আসবে একটি ওটিপি, সেই ওটিপি দিয়ে আপনি অ্যাপের যাবতীয় কাজ করতে পারবেন। অ্যাপের মধ্যে দ্বিতীয় অপশন পাবেন ‘Bill’। যেখানে ক্লিক করলে আপনার কাছে চাওয়া হবে আপনার বিদ্যুৎ কানেকশনের ৯ ডিজিটের কনজিউমার আইডি। যেটি দেওয়ার পর আপনি আপনার বিদ্যুতের বিল সংক্রান্ত বিস্তারিত বিষয় দেখতে পাবেন।

এখানেও আপনি আপনার ইচ্ছা মত মাসের হিসাবে বিল জমা দিতে পারেন। অর্থাৎ আপনি ইচ্ছা করলে এক মাস, দুমাস অথবা একসাথে তিন মাসের বিদ্যুতের বিল জমা করতে পারেন। পরবর্তী পর্যায়ে গিয়ে পেমেন্ট করার জন্য অপশন পাবেন ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড, নেট ব্যাঙ্কিং অথবা UPI।

৩) তৃতীয় সহজ ও সুরক্ষিত অপশনটি হল ‘Paytm’। এই অ্যাপে যদি আপনি রেজিস্টার্ড করে থাকেন তাহলে খুব সহজ ও সুরক্ষিত পদ্ধতিতে আপনি আপনার বিদ্যুতের বিল জমা দিতে পারবেন ডিজিটাল পেমেন্টের মাধ্যমে।

‘Paytm’ অ্যাপটি খোলার পর হোমপেজে থাকা ‘Electricity’ অপশনটিতে ক্লিক করে আপনাকে প্রথমেই বেছে নিতে হবে আপনার রাজ্য। ঠিক তার পরেই আপনাকে বেছে নিতে হবে আপনি কোন বিদ্যুৎ বন্টনের আওতায় রয়েছেন। অর্থাৎ আপনি যদি পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ বন্টন নিগমের আওতায় থাকেন তাহলে আপনাকে ক্লিক করতে হবে ‘WBSEDCL’ বা অন্য কোন দপ্তরের আওতায় হলে সেটিকে বেছে নিন। তারপর আপনাকে দিতে হবে ৯ ডিজিটের কনজিউমার আইডি। আর তা দেওয়ার পর পরবর্তী পর্যায়ে যাওয়ার জন্য ক্লিক করলেই আপনাকে আপনার বিদ্যুৎ বিলের সমস্ত বিস্তারিত জানিয়ে দেওয়া হবে। এখানেও আপনি আপনার ইচ্ছামত মাসের ভিত্তিতে বিল জমা দিতে পারবেন। পেমেন্ট করার জন্য ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড, পেটিএম ওয়ালেট, পেটিএম ব্যাঙ্ক, নেট ব্যাঙ্কিং ও ইউপিআই অপশন পাবেন।

৪) বাড়িতে বসে বিদ্যুতের বিল দেওয়ার জন্য আরও একটি সুরক্ষিত মাধ্যম হলো ‘PhonePe’। এখানেও আপনাকে পেটিএমের মতই ‘Electricity’ অপশনটি বেছে নিতে হবে। তারপর আপনাকে বেছে নিতে হবে আপনি কোন বিদ্যুৎ বন্টন দপ্তরের আওতায় রয়েছেন। তারপর আপনাকে দিতে হবে আপনার বিদ্যুৎ কানেকশনের ৯ ডিজিটের কনজিউমার আইডি। আর তা দেওয়া হলে আপনাকে বিদ্যুতের বিলের বিস্তারিত তথ্য দেখিয়ে দেওয়া হবে। এরপর আপনি পেমেন্ট করতে পারবেন ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড অথবা ইউপিআই-এর মাধ্যমে। কিন্তু এখানে একসাথে তিন মাসের বিল পেমেন্ট করতে হয়।

৫) ডিজিটাল লেনদেনের মাধ্যমে পঞ্চম সুরক্ষিত ও সহজ বিদ্যুতের বিল জমা দেওয়ার পদ্ধতি হল ‘GooglePay’। ‘GooglePay’-র মাধ্যমে বিদ্যুতের বিল জমা দেওয়ার জন্য প্রথমেই আপনাকে বেছে নিতে হবে ‘New Payment’ অপশনটি। তারপর সেখানে পাবেন ‘Bill Payments’ নামে আরও একটি অপশন। যেখানে ক্লিক করে বেছে নিতে হবে ‘Electricity’। তারপর বেছে নিতে হবে আপনার বিদ্যুৎ দপ্তরের নাম। পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ সংস্থার আওতায় গ্রাহকরা বেছে নেবেন ‘WBSEDCL’। তারপর ‘Get Started’-এ ক্লিক করলেই পাবেন আপনার বিদ্যুৎ কানেকশনের ৯ ডিজিটের কনজিউমার আইডি দেওয়ার জায়গা। তার নিচেই দিতে হবে যার নামে বিদ্যুৎ কানেকশন রয়েছে তার নির্ভুল নাম। সঙ্গে সঙ্গে দেখিয়ে দেবে আপনার বকেয়া বিদ্যুৎ বিল। এরপর ‘Pay Bill’ অপশনে ক্লিক করে আপনি আপনার বকেয়া বিদ্যুতের বিল জমা দিতে পারবেন ডিজিটাল লেনদেনের মাধ্যমে। এখানে আপনি আপনার ‘Google Pay’-এর সাথে যে ব্যাঙ্কের লিঙ্ক করা রয়েছে সেই ব্যাঙ্ক থেকে টাকা কাটাতে পারবেন অতি সহজেই।

প্রসঙ্গত, একবার যদি আপনি এই সকল সহজ পদ্ধতিগুলি ব্যবহার করে থাকেন তাহলে পরবর্তী ক্ষেত্রে আপনাকে আর বারবার করে কনজিউমার আইডি দিতে হবে না। পরবর্তীকালে আপনি যখনি বিদ্যুতের বিল দিতে যাবেন আপনার রেকর্ড দেখাবে। সেখানে ক্লিক করেই এক নিমেষে দিতে পারবেন বিদ্যুতের বিল।

Check Also

বাথরুমের টাইলস পরিষ্কার করার সহজ ও কার্যকরী ৬টি কৌশল

বাথরুমের টাইলস পরিষ্কার – বাথরুম পরিষ্কার করার আগে একটি শুকনো কাপড় দিয়ে মেঝে, দেয়াল ভাল ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *