Breaking News
Home / HEALTH / এই চারটি খাবার রোজ খান, প্রখর হবেই স্মৃতিশক্তি, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন।

এই চারটি খাবার রোজ খান, প্রখর হবেই স্মৃতিশক্তি, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন।

এরকম আরও মজাদার নিউজ পেতে আমাদের পেজটি স্ক্রল করে নীচে দেখুন অথবা আমাদের নতুন সংযোজন আরও পড়ুন অপশনটিতে ক্লিক করুন। আজকাল কোথায় কি রাখছেন, কাকে কি বলছেন, কোথায় কি দিচ্ছেন কিছুই কি মনে রাখতে পারছেন না? সবকিছুই আপনার মাথা থেকে উড়ে যাচ্ছে? কমে যাচ্ছে আপনার স্মৃতিশক্তি? খুঁজে পাচ্ছেন না চশমার খাপ, চাবির গোছা? এখানে সেখানে ফেলে আসছেন ভুল করে এটা-সেটা?

মনে থাকছে না পরিচিত মানুষের নাম? খুব ভুলো মন? মানুষের এই ভুলে যাওয়ার প্রক্রিয়া টা খুবই স্বাভাবিক। আসলে মানুষের মস্তিষ্কটা একটা কম্পিউটারের মতো। কম্পিউটারের মতোই বিভিন্ন কাজকর্ম করা হয়। তাই কম্পিউটারের যেমন মস্তিষ্কের ক্ষমতা কমতে থাকে, তেমনই মানুষের মস্তিষ্কের ক্ষমতাও ক্রমশ কমতে থাকে।

কিন্তু মস্তিষ্কের ক্ষমতা কমলে তো অনেক সমস্যা। তাই কমতে দেওয়া চলবে না মস্তিষ্কের ক্ষমতা। এজন্যই আজ আমরা এই প্রতিবেদনে এমন চারটি খাবারের কথা বলবো যেগুলো খেলে আপনার মস্তিষ্কের ক্ষমতা অনেকদিন পর্যন্ত থাকবে, বাড়বে স্মৃতিশক্তি।

পৃথিবীর নানা দেশের অনেক বিজ্ঞানীরাই প্রমাণ করেছেন যে, বিভিন্ন পুষ্টিকর খাবারই মস্তিষ্কের প্রধান দাওয়াই। আসুন জেনে নিই।

১। ভেজিটেবল অয়েলঃ বিজ্ঞানীদের মতে ভেজিটেবল অয়েল নাকি সবচেয়ে বেশি উপকারী স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য। কারণ হিসেবে বলা হয় যে, ভেজিটেবল অয়েল অর্থাৎ সূর্যমুখী তেল, অলিভ অয়েল বা বিভিন্ন বাদাম তেলে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই, যা স্মৃতিশক্তির কার্যাবলীকে মসৃণ গতিতে পরিচালিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বয়স্কদের স্মৃতিশক্তি তাজা রাখতেও এই বিভিন্ন ভেজিটেবল অয়েল খুবই উপকারী। তাছাড়াও এই অয়েল গুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে কোলিন থাকে যা স্বল্পস্থায়ী স্মৃতিশক্তির ঘাটতি পূরণে কাজ করে।

২। সামুদ্রিক বা মিষ্টি জলের মাছঃ মাছে থালে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩। যে কারণে স্মৃতিশক্তি বাড়তে খুবই উপকার হয়। তাই বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছ যেমন, স্যামন, সার্ডিন, টুনা, ম্যাকরেল এছড়াও মিষ্টি জলের সবরকম মাছই নিয়মিত খাওয়া উচিত। মাছের চর্বিতে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা মস্তিষ্ক গঠন ও কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে খুবই সহায়ক।

৩। সবুজ শাকসবজিঃ আমরা সকলেই জানি শরীর ভালো রাখার জন্য শাকসব্জির কোন বিকল্প হয় না। আর স্মৃতিশক্তি বাড়াতেও শাকসব্জির কোন বিকল্প হয় না। শাকে লুটেনিন নামে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এটি কগনিটিভ পতন প্রতিরোধ করে। লুটেইন মস্তিষ্কের প্রধান কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে, তাই নিয়মিত বিভিন্ন শাকসবজি, ব্রকলি ইত্যাদি খাওয়া উচিত।

৪। ব্ল্যাক কফি বা ডার্ক চকলেটঃ আমরা সকলেই জানি যে চকলেট এবং কফি মানুষের শরীরে উদ্দীপনা বাড়াতে সাহায্য করে, তার প্রভাব পড়ে মস্তিষ্কের উপর। কারণ কফি আর চকলেটে প্রাকৃতিক উদ্দীপনা সৃষ্টিকারী উপাদান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। পরিমিত মাত্রায় প্রতিদিন ব্ল্যাক কফি বা ডার্ক চকলেট খেতে পারলে আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি ঠিকঠাক থাকবে দীর্ঘদিন।

Check Also

দাঁড়িয়ে খাবার খেলে হতে পারে যেসব ক্ষতি…

কাজের চাপ ও হাতে সময় কম থাকার কারণে অনেক সময় আমরা খাবার খেতে তাড়াহুড়ো করি। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *