Breaking News
Home / HEALTH / করোনা আবহে বাজারে গ্লাভস পরে বের হওয়ার আগে জানুন সঠিক ব্যবহার

করোনা আবহে বাজারে গ্লাভস পরে বের হওয়ার আগে জানুন সঠিক ব্যবহার

করোনাভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে দীর্ঘ সময় ধরে লকডাউন জারি হয়েছিলো দেশে। এই সময় দোকানপাট সমস্ত কিছু বন্ধ ছিল। পঞ্চম দফার লকডাউন থেকে আস্তে আস্তে আনলকের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যায়। আর এই সবকিছু খোলার সাথে সাথে মানুষের মধ্যে বাজারে যাওয়ার হিড়িক পরে যায়। বাজারমুখী এই জনতার মধ্যে কিছু মানুষ গ্লাভস ব্যবহার করছেন কিছু মানুষ গ্লাভস ব্যবহার করছেন না।

যারা গ্লাভস ব্যবহার করছেন না তাদের সংক্রমিত হ‌ওয়ার একটি ভয় থাকে। কিন্তু যারা গ্লাভস ব্যবহার করছেন তারা প্রত্যেকেই কি নিরাপদ? গ্লাভস পরলে কি আর কোন ভয় নেই? গ্লাভস ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি কি? গ্লাভস ব্যবহার করার পর কি করা উচিত? গ্লাভস সম্পর্কিত যাবতীয় ‌ফান্ডা দেখে নিন একনজরে।

অতিরিক্ত বিশ্বাস ক্ষতিকারক : বিশেষজ্ঞদের মতে গ্লাভসের উপর সাধারণ মানুষের বিশ্বাসটা প্রয়োজনের থেকে অতিরিক্ত। একজন মানুষ গ্লাভস পরার পর মনে করেন তিনি নিরাপদ। এই অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস ব্যাপারটা তার মনে অন্যান্য সকল ভয় দূর করে দেয়। ফলে সচেতনতা সংক্রান্ত অন্যান্য বিধিনিষেধগুলি মাথায় রাখার কথা তার খেয়ালে থাকেনা।

গ্লাভস অনেক বেশি ক্ষতিকারক : হ্যাঁ, আমরা যে গ্যাস ব্যবহার করি সেই গ্লাভস সিলিকন, রাবার, প্ল্যাস্টিক ইত্যাদি উপাদান দিয়ে তৈরি। আর এই সকল উপাদানের উপরই কোভিড-১৯ ভাইরাস দীর্ঘক্ষণ জীবিত থাকে।তাই গ্লাভস হাতে নিয়ে নিজেকে সুপারম্যান ভাবার মতো কিছু হয়নি।

গ্লাভস পড়লে অতিরিক্ত সচেতনতা অবলম্বন প্রয়োজন : গ্লাভস পরা হাত অসচেতনতা বশত যদি শরীরের অন্য কোন অংশে পড়ে তাহলে সেই অংশগুলিও ভাইরাস সংক্রমিত হয়ে যেতে পারে। কারণ আগেই বলেছি গ্লাভস প্লাস্টিক, রাবার ইত্যাদি উপাদান দিয়ে তৈরি। আর এই প্লাস্টিক জাতীয় উপাদানের উপরই কোভিড-১৯ ভাইরাস দীর্ঘক্ষণ জীবিত থাকে।

অসতর্ক হলেই বিপদ : গ্লাভস পরা হাতে খেয়ালে বেখেয়ালে শরীরের অন্য কোনো অংশে হাত দিলে সেই অংশও ভাইরাসের সংস্পর্শে চলে আসে ফলে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এমনকি দূষিত গ্লাভস থেকে যেখানে ভাইরাস নেই সেখানেও ভাইরাসটি ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

জীবাণু : হাতে যদি গ্লাভস না থাকে তাহলে হাত মানুষ বারবার স্যানিটাইজ করে। কিন্তু হাতে গ্লাভস পরা থাকলে স্যানিটাইজের কথাটা মাথাতেই থাকে না। এর ফলে গ্লাভসের মধ্যে জমতে থাকে জীবাণু।

কিছু আবশ্যক স্বাস্থ্যবিধি : গ্লাভস খুলে রাখার পরে কতকগুলি স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে হয়। গ্লাভস পরা হাত মানেই নিরাপদ এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই। গ্লাভস হাত থেকে খোলার পর হাত আবার স্যানিটাইজ করতে হয়। কিন্তু হাতে গ্লাভস পড়েছেন বলে অনেকেই গ্লাভস খোলার পর আর হাত স্যানিটাইজ করেন না। এর ফলে বড় বিপদ হতে পারে।

একটি গ্লাভস কতবার ব্যবহার করা যায় : একটি গ্লাভস দীর্ঘক্ষন ব্যবহার করা উচিত নয়। একবার ব্যবহার করার পরই সেটা পুড়িয়ে দেওয়া উচিত অথবা ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়া উচিত।না হলে এই গ্লাভস থেকে আবার জীবাণু ছড়িয়ে যাবে।

গ্লাভস খোলার সঠিক পদ্ধতি : অনেকেই গ্লাভস খোলার সঠিক পদ্ধতি জানেন না।গ্লাভস খুলতে হয় হাতের কবজির সামনের গ্লাভসের অংশের দুই আঙুলে টেনে। এই পদ্ধতি না জানার ফলে শরীরের অন্য অংশে গ্লাভস পরে হাত দিলে সংক্রমণ ছড়ার সম্ভাবনা থাকে।

Check Also

দাঁতে’র অসহ্য যন্ত্রণায় যা করবেন…

দাঁতে ব্যথা অত্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক, তাই দাঁতের স্বাস্থ্য ধরে রাখতে কিছু ঘরোয়া টোটকা মেনে চলুন। লবণ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *