Breaking News
Home / INSPIRATION / এবার অভিনেতা রনিত রায় নিজের সম্পত্তি বিক্রি করে এই দুঃসময়ে অসহায় পরিবারগু’লির পাশে দাড়াতে যা করলেন

এবার অভিনেতা রনিত রায় নিজের সম্পত্তি বিক্রি করে এই দুঃসময়ে অসহায় পরিবারগু’লির পাশে দাড়াতে যা করলেন

নিজের সম্পত্তি বিক্রি করে পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন অভিনেতা রণিত রয়।মানুষের প্রথম পরিচয় তার মানবিকতা। মান আর হুশ এই নিয়েই মানুষ। একে অপরকে বিপদের সময় ঝাঁপিয়ে পড়ার শিক্ষা প্রত্যেক মানুষের পাওয়া উচিত।

বিশেষ করে যখন দেশজুড়ে চরম বিপর্যয় চলছে। দেশে কাজ হারিয়েছেন কোটি কোটি মানুষ। সরকারি সাহায্য পাওয়া গেলেও তার যথাযথ হচ্ছে না। তার মধ্যে রয়েছে পরিযায়ী শ্রমিকদের কষ্ট।

এসবের মাঝেই নিজের ব্যক্তিগত সম্পত্তি বিক্রি করে গরিব পরিবারের পাশে দাঁড়ান না আমাদের সবার প্রিয় অভিনেতা রনিত রায়। তাকে আমরা দেখেছি চলচ্চিত্র জগতে। অভিনেতাদের পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। বিশেষ করে হিন্দি সিরিয়ালের এই ব্যক্তি। ‘আদালত ‘ নামক হিন্দি ও বাংলা ধারাবাহিকে বহুদিন ধরে অভিনয় করেন তিনি।

তার অভিনীত ধারাবাহিক সকলের কাছে খুবই জনপ্রিয়।অভিনয় করার পাশাপাশি তিনি যে কত বড় মনের মানুষ তা প্রমাণ পাওয়া গেল এই পরিস্থিতিতে।১০০ টি অসহায় পরিবারের দায়িত্ব নিয়ে তিনি তা প্রমাণ করলেন।দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ানো মানবিকতায় মানুষের মনে তাদের জায়গা করে নেয়।অভিনয়ের মাধ্যমে সেরকমভাবে না হলেও এই দুঃসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রত্যেকের মন জয় করলেন রনিত।

অভিনেতা সনু সুদের মতোই পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করার জন্য খুব একটা খ্যাতির শিখরে তিনি পৌঁছাননি। কিন্তু মানবিকতার দিক দিয়ে সনু সুদ এর থেকে কম যান না তিনি। এই বাঙালি অভিনেতা টাইমসের একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন,গত জানুয়ারি মাস থেকে আমার টিভি ধারাবাহিকে সমস্ত পারিশ্রমিক আটকে আছে।

আমারই ছোট ব্যবসা আছে যেটা গত মার্চ মাসে থেকে সেটাও বন্ধ। ১০০ টি পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর দায়িত্ব নিয়েছি, তাদের জন্য নিজের সমস্ত অর্থ বিক্রি করেছি। কারণ আমি অনেক ধনী ব্যক্তি নই। কিভাবে নিজের সম্পত্তি বিক্রি করে তাদের পাশে আমি দাঁড়াচ্ছি। কিন্তু আজ এই কাজটি করতে পেরে আমি খুবই খুশি।

তিনি আরো বলেন, যে প্রযোজনা সংস্থা চ্যানেল কর্তৃপক্ষ যাদের বিলাসবহুল অফিস দু’কিলোমিটার দূর থেকেও দেখা যায় তাদের কিছু করা উচিত এই মানুষদের জন্য। তাই এখনো যদি কেউ কিছু না করে সেটা ভীষনই অনুচিত হবে। তার মতে প্রযোজনা সংস্থাগুলির বোঝা উচিত শিল্পীদের এখন টাকার প্রয়োজন ৯০ দিন পর দিয়ে কি হবে?

শিল্পীরা যাতে না খেতে পেয়ে কাটাতে না হয় তার ব্যবস্থা করা উচিত তাদের। অভিনেতারাও মানুষ তাদেরও সমস্যার আছে টাকার প্রয়োজন তাদেরও। তাই প্রযোজনা সংস্থা গুলি অভিনেতা-অভিনেত্রীদের দিকে নজর দেওয়া উচিত। সাথে দুঃখী মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানোটা এই সময় খুব দরকার।তার এই কর্মকাণ্ডের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশংসা বার্তা জানিয়েছেন অনেকেই।

Check Also

১৫ দিন বয়সের শিশু সন্তানকে কোলে নিয়েই দ্বায়িত্ব পালন করছেন মহিলা IAS অফিসার!

১৫ দিন বয়সের শিশু সন্তানকে কোলে নিয়েই দ্বায়িত্ব পালন করছেন মহিলা IAS অফিসার! নেটিজেনদের সেলুট ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *