Breaking News
Home / NEWS / চিন থেকে বেরিয়ে এসে ভারতে ব্যবসা করতে ইচ্ছুক জাপানের একাধিক সংস্থা!

চিন থেকে বেরিয়ে এসে ভারতে ব্যবসা করতে ইচ্ছুক জাপানের একাধিক সংস্থা!

করোনা ভাইরাসের কারণে উৎপাদনের হাব হিসেবে চিন থেকে জমি সরে যেতে পারে। প্রায় হাজার খানেক বিদেশী সংস্থা ইতিমধ্যেই ভারতের সঙ্গে বিভিন্ন স্তরে আলোচনা শুরু করেছে। এদের মধ্যে অন্তত ৩০০টি সংস্থা সক্রিয় ভাবে ছক কষেছে ভারতে ‌ সরে আসার। সেই সব সংস্থাগুলি হল- মোবাইল, ইলেকট্রনিক্স, মেডিকেল ডিভাইস, টেক্সটাইল এবং সিন্থেটিক ফেব্রিক্স উৎপাদনকারী। এমনটাই জানা যাচ্ছে ‌ বলে এক সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে রিপোর্টে।

বিশ্বের তাবড় তাবড় একাধিক দেশ তাঁদের সংস্থা চিন থেকে সরিয়ে নিয়ে যেতে চায়। যেমন ইতিমধ্যে ব্রিটেনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, চিনের সঙ্গে বাণিজ্য আর আগের মতো হওয়া সম্ভব নয়। সবথেকে তাৎপর্যপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাপানও। জাপান সরকার জানিয়েছে, যত জাপানি সংস্থা চিন থেকে নিজেদের উৎপাদন ইউনিট সরিয়ে নিয়ে আসবে তাদের বিশেষ আর্থিক প্যাকেজ দেওয়া হবে। আড়াইশো কোটি ডলারের প্যাকেজ ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে জাপান।

শুধু দেশে ফিরে এলেই নয়, কোনও জাপানি সংস্থা যদি চিন থেকে বেরিয়ে এসে অন্য কোনও দেশে প্রোডাকশন ইউনিট গড়তে চায়, তাহলেও বিশেষ আর্থিক সহায়তা দেবে জাপান সরকার। জাপানের বেশ কিছু সংস্থা ভারতে আসার আগ্রহ দেখিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। এর মধ্যেই ভারতও কড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে চিনকে ঠেকাতে। করোনা জনিত লকডাউনের জেরে যে সংস্থাগুলির বাণিজ্য স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে, তাদের অনেকেই আর বাণিজ্য চালু রাখতে আগ্রহী নয়।

সেই সুযোগ নিয়ে চিনের একাধিক সংস্থা সেগুলি অধিগ্রহণ করতে উদ্যোগী হয়ে ভারতের বাজারে ঢুকে পড়তে মরিয়া। এই তথ্য জানতে পেরে ভারত পাল্টা সক্রিয় হয়েছে। ভারত সরকার এফডিআই নীতির বিশেষ বদল ঘটিয়েছে। নতুন নীতি অনুযায়ী ভারতের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে এরকম প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলি ভারতে কোনওরকম এফডিআই এর মাধ্যমে লগ্নি করতে চাইলে সরকারি অনুমোদনের মাধ্যমেই অগ্রসর হতে হবে। অর্থাৎ পূর্ববর্তী যে অটোমেটিক রুটের সুবিধা ভারত দিয়েছিল, সেই ব্যবস্থা প্রত্যাহার করে নিয়েছে ভারত।

এই নীতিবদলের প্রধান লক্ষ্য কমিউনিস্ট চিন। সামগ্রিকভাবে করোনা পরবর্তী যুগে চিন অনেকটাই কি একঘরে হয়ে যাবে? এই প্রশ্ন উঠছে। তবে আমেরিকার অর্থনীতি এই করোনা ভাইরাস এতটাই ধাক্কা দিয়েছে যে, কতদিনে যে আমেরিকা আবার ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। সুতরাং চিন বনাম বাকি বিশ্বের বাণিজ্য যুদ্ধ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। পাকিস্তান ও উত্তর কোরিয়া বরাবরই চিনের পক্ষেই থাকবে। ভারতের বিদেশমন্ত্রক মনে করছে, চিন সম্পর্কে ইরান ও রাশিয়ার ভূমিকাই হতে চলেছে আগামীদিনে সবথেকে তাৎপর্যপূর্ণ।

Check Also

একেই বলে ভালোবাসা! স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়লো স্বামীর!!!

সং’যুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে বসবাসকারী ৩২ বছর ব’য়সী এক ভারতী’য় নাগরিক নিজের অ্যাপার্টমেন্টে লাগা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *